ত্বকের যত্ন

ত্বকের যত্ন 

চলমান আবহাওয়ায় আমাদের শরীরের চামড়ার ধরণ পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। অনেকেই বুঝতে পারছেন না, এর সঠিক সমাধান কোথা থেকে পাবেন। তাই ঘরোয়াভাবে আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা অনুযায়ী কীভাবে কোনো নারী নিখুঁত চেহারা পাবেন তা তুলে ধরেছেন রূপ বিশেষজ্ঞ

রহিমা সুলতানা

 

ষড়ঋতুর দেশ বাংলাদেশ। ঋতুর বৈচিত্র্যের সঙ্গে সঙ্গে এ দেশে আবহওয়া এবং মানুষের দেহ ও মনের পরিবর্তন দেখা দেয়। প্রতিটি ঋতু পরিবর্তনের সময় আমাদের দেহের ও বাইরের আবহাওয়ার তাপমাত্রার সমন্বয় ঘটানো খুবই জরুরি। কার্তিক ও অগ্রহায়ণ মাসে প্রচুর ঘাম বের হয়ে শরীর ডিহাইড্রেটেড হতে পারে।
ত্বক সব সময় শীতল ও পরিষ্কার রাখতে প্রতিদিন ঠা-া পানি দিয়ে গোসল করতে হবে। সম্ভব হলে শীততাপ নিয়ন্ত্রণযুক্ত কক্ষে থাকতে হবে। ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখতে পানির বিকল্প নেই। দিনে তিন-চার লিটার পানি আধা গ্লাস করে একটু পর পর পান করতে হবে। এছাড়া যে কোনো ফলের রস পান খুবই উপকারী।
প্রতিদিন দুধ, কাঁচাহলুদ ও আমলকী খাওয়া উচিত। এতে স্কিন উজ্জ্বল ও ব্যাকটেরিয়া দূর হবে।
রোদে যাওয়ার আগে
ঘর থেকে বের হওয়ার আগে শুধু সানস্ক্রিন ব্যবহার করলেই হবে না, গোসল করে নেয়া ভালো। পানিতে কয়েক ফোঁটা বেনজয়েন অ্যাসেনসিয়াল অয়েল মিশিয়ে গোসল করলে ঘামে দুর্গন্ধ ও রোদে ত্বক কালচে হবে না। ওষুধের দোকান বা সুপারশপে এই অয়েল পাবেন। চার ঘণ্টা পর পর ল্যাভেন্ডার অয়েল সমৃদ্ধ ওয়েট টিস্যু দিয়ে ত্বক মুছে দিতে হবে।
রোদে পোড়া ভাব দূর করতে
যে কোনো ত্বকের জন্য অ্যালোভেরা পেস্ট উপকারী। রাতে টক দই, ডিমের সাদা অংশ মিশ্রণ প্যাক হিসেবে ত্বকে লাগানো যেতে পারে। কিছুক্ষণ পর ধুয়ে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন। এছাড়া সুজি হালকা করে ভেজে এর সঙ্গে মধু মিশিয়ে ত্বকে ব্যবহার করা যায়। এটি স্ক্রাবের কাজও করবে। স্ট্রবেরি, টক দই ও ময়দার মিশ্রণ তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ভালো। শুষ্ক ত্বকের জন্য ব্যবহার করা যাবে দুধের সর, যে কোনো বাদাম, মধু ও সামান্য চিনির মিশ্রণ।
যাদের ত্বক পাতলা তাদের নিতে হবে বাড়তি যতœ। এ ধরনের ত্বকের চামড়া ভেদ করে শিরার রেখা চোখে পড়ে। অনেকের পাতলা ত্বক রোদে গেলে অল্পতেই লাল হয়ে যায়। ফলে ত্বকে জ¦ালাপোড়া হয়। যাদের ত্বক পাতলা তারা যেন সকাল ১১টা থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত রোদ এড়িয়ে চলেন। রোদে বের হলে অবশ্যই ত্বক বুঝে সানব্লক ব্যবহার করতে এবং সঙ্গে রাখতে হবে ছাতা। বাইরে থাকলে দুই ঘণ্টা পর পর নতুন করে ত্বকে সানব্লক লাগতে হবে। কিছু ফেস পাউডারও সানব্লকের কাজ করে। যাদের ত্বক তৈলাক্ত তারা এমন পাউডার ব্যবহার করতে পারেন। রোদচশমা ও হ্যাট জাতীয় বড় টুপি ব্যবহার করতে হবে যেন চোয়াল ও এর আশপাশে রোদ না লাগে। এরপরও যদি ত্বক লাল হয়ে জ্বালা করে তাহলে বরফ ঘষতে হবে অথবা ঠা-া পানির ঝাপটা দিতে হবে।
শুষ্ক ত্বক : গরমে শুষ্ক ত্বক আরো যেন খসখসে, শুষ্ক, প্রাণহীন হয়ে যাচ্ছে। এ থেকে বাঁচার জন্য যা করতে হবে- 
তরমুজ, টক দই, চন্দন ও ঘৃতকুমারী এক সঙ্গে প্যাক করে লাগালে ত্বক মসৃণ ও নরম থাকবে।
আইস বা বরফ, ঘৃতকুমারী, নিম তেল ও চন্দন লাগালে ত্বকের হয়।
তৈলাক্ত ত্বক : গরমে তৈলাক্ত ত্বক থেকে প্রচুর তেল বের হয়। ফলে ত্বক আরো গরম হয়ে যায়। এছাড়া দেখা দেয় ব্রণ। এ জন্য যা করতে হবে-
টমাটো, মধু, নিমপাতা ও মসুরের ডাল লাগাতে হবে। এতে ত্বকের অতিরিক্ত তেল কমে যাবে এবং ব্রণ দূর হবে।
শসার রস, সয়াবিন, মধু ও আঙুরের রস লাগালে ত্বক উজ্জ্বল হয় এবং তৈলাক্ত ভাব কমে যায়।
মিশ্র ত্বক : মিশ্র ত্বক গরমে তৈলাক্ত হয়ে ওঠে এবং মুখের চামড়া উঠতে থাকে। এ জন্য যা করতে হবে-
কচি ডাবের শাঁস, কমলার রস, বেসন ও কালোজিরার তেল প্যাক করে লাগাতে হবে। এতে ত্বক নরম ও উজ্জ্বল হবে।
পাকা পেঁপে, চকলেট, চন্দন ও হলুদ প্যাক ব্যবহার করলে ত্বক সতেজ এবং টানটান হবে।

চুলের পরিচর্যা
লেবুর রসের সঙ্গে ত্রিফলা চূর্ণ মিশিয়ে সপ্তাহে ২ দিন চুলে ব্যবহার করলে চুলের গোড়া শক্ত হয় এবং দ্রুত বাড়ে।
লেবুর রসের সঙ্গে টক দই অথব নারিকেল তেলের সঙ্গে কর্পূর মিশিয়ে চুলের গোড়ায় মাসাজ ব্যবহার করলে খুশকি দূর হয়।
পেঁয়াজের রসের সঙ্গে জবা ফুল পেস্ট করে লাগালে চুল গজাতে সাহায্য করে।
লেবুর রসের সঙ্গে চায়ের লিকার মিশিয়ে শ্যাম্পু শেষে ব্যবহার করলে চুল ঝলমলে ও সুন্দর হয়।
শ্যাম্পু ব্যবহারের পর কন্ডিশনিংয়ের জন্য ১ চামচ মেথি ১ লিটার পানিতে সারা রাত ভিজিয়ে রেখে ওই পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলতে হবে।

হাতের যত্ন
বেসন ২ চামচ, টক দই ২ চামচ, চিনি ১ চামচ ও পাতিলেবুর রস আধা চামচ একত্রে মিশিয়ে ১৫-২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে।
একটি পাকা কলার সঙ্গে চিনি মিশিয়ে হাতে লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে।
পোস্তাবাটা ২ চামচ, গুঁড়া দুধ ১ চামচ, মধু ২ চামচ ও গোলাপ জল ২ চামচ একত্রে মিশিয়ে ২ হাতে সুন্দর করে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে।
পাকা কলার সঙ্গে তেঁতুলের ক্বাথ মিশিয়ে কনুইয়ে লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে।
চালের গুঁড়া ২ চামচ, টক দই ২ চামচ, মুলতানি মাটি ২ চামচ, কমলার খোসার গুঁড়া ১ চামচ ও অলিভ অয়েল ১ চামচ একত্রে মিশিয়ে হাতে লাগানোর পর ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে।
বেসন ২ চামচ, সামান্য কাঁচা দুধ ও এপ্রিকট স্ক্রাবার ২ চামচ মিশিয়ে পুরো হাতে ১৫-২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে।

পায়ের যত্ন 
মুলতানি মাটি ২ চামচ, মধু ২ চামচ, তরমুজের রস ২ চামচ ও ডাবের পানি ২ চামচ একত্রে মিশিয়ে পায়ে লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে।
শসার রস ২ চামচ, আলুর রস ২ চামচ ও মধু ১ চামচ পায়ে লাগিয়ে শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলতে হবে।

 

মডেলঃ ফাহমি এশা

ছবিঃ সুমন হোসাইন

মেকওভারঃ ক্লিও প্রেট্রো বিউটি স্যালন

Read 291 times

About Us

Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipisicing elit, sed do eiusmod tempor incididunt ut labore et dolore magna aliqua.

Duis aute irure dolor in reprehenderit in voluptate velit esse cillum dolore eu fugiat nulla pariatur.

Read More

We use cookies to improve our website. By continuing to use this website, you are giving consent to cookies being used. More details…