মৃত্যুঞ্জয়ী দর্শনের প্রত্যয়ের আলোতে পথচলা

মৃত্যুঞ্জয়ী দর্শনের প্রত্যয়ের আলোতে পথচলা

যতীন সরকার

 

‘কোনো বিপ্লবী প্রতিভার মৃত্যু নেই। মৃত্যু অনেক ক্ষেত্রে অতিক্রান্ত পথের নিশানা। মুক্তিসংগ্রামীর গলায় যে জয়ের মালা দোলে তা কোনোদিন বাসি হতে পারে না। কারণ মুক্তিসংগ্রামী সে মালা দিয়ে যায় তার উত্তরপুরুষের গলায়। অব্যাহত জীবনস্রোতের মোকাবিলায় এখানে মৃত্যুকেই মনে করা যেতে পারে অর্থহীন। অমরতার এই দর্শনকে সামনে রেখে যদি আমরা রবীন্দ্রনাথের স্থায়িত্ব-অস্থায়িত্ব বিচার করতে বসি তাহলে নিরবধিকাল পর্যন্ত যেতে না পারলেও অনেক দূর যেতে পারবো।’ রণেশ দাশগুপ্ত ১৯৬৮ সালে রবীন্দ্র জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে রণেশ দাশগুপ্ত একটি প্রবন্ধে এই কথাগুলো লিখেছিলেন। প্রবন্ধটির শীর্ষনাম ‘মার্কসবাদী দৃষ্টিতে রবীন্দ্রনাথ’। অত্যন্ত স্বল্পপরিসরে বিধৃত এ লেখাটিতে রণেশ দাশগুপ্ত রবীন্দ্রনাথের সৃষ্টিতে স্থায়িত্ব-অস্থায়িত্ব বিচার করতে গিয়ে দুটো দিক সামনে নিয়ে এসেছিলেন। এ দুটো দিকের একটির আশ্রয় অবশ্যই মার্কসবাদ, অন্যটির অস্তিত্ববাদ। মার্কসীয় দর্শনের অভ্যুদয়ের পর থেকেই এ দর্শনকে বিভিন্ন ধরনের বাদ-প্রতিবাদের মোকাবিলা করতে হয়েছে। রাষ্ট্র ও সমাজের কর্তৃত্বশীল বুর্জোয়ারা তখন থেকেই বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন প্রকারের দর্শনের উদ্ভাবন ঘটিয়ে মার্কসবাদের বিরুদ্ধে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে।  বিগত শতকের ষাটের দশকে বুর্জোয়াদের উদ্ভাবিত যে দর্শনটি সবচেয়ে বেশি কোলাহলের সৃষ্টি করেছিল সেটির নাম অস্তিত্ববাদ। রণেশ দাশগুপ্ত তার ছোট্ট লেখাটিতে অত্যন্ত দৃঢ়সংবদ্ধরূপে অস্তিত্ববাদী দর্শনের মূল মর্ম তুলে ধরেছেন এবং এ দর্শনটির প্রধান দুটো উপধারার পরিচয় উদ্ঘাটন করেছেন। অস্তিত্ববাদও ‘বিদ্রোহী ও স্বাধীনতাপ্রিয় ব্যক্তি’র অভীপ্সাকে ধারণ করে বটে কিন্তু সে অভীপ্সা একান্তভাবেই ‘একক দায়িত্ববোধ’-এর। তবে অস্তিত্ববাদের যে দুটো উপধারা রয়েছে তার প্রথমটি ‘একটি সর্বধ্বংসী মৃত্যুর সম্মুখীন হয়ে ধর্মীয় সংঘজীবনে মাথা গুঁজে থাকা’টাকেই শ্লাঘ্য বিবেচনা করে।

আর দ্বিতীয়টি চায় ‘সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবী আন্দোলনের গণসমাবেশে শরিক’ হয়ে থাকতে। প্রথমটির তুলনায় দ্বিতীয়টি অবশ্যই অগ্রসর চিন্তার ধারক। এ অগ্রসর উপধারাটিরই প্রধান ধারক ছিলেন ফরাসি মনীষী জাঁ পল সার্ত্রে। এ রকম অগ্রসর হতে গিয়েই স্বভাবতই সার্ত্রে মার্কসের অনুরাগী ও অনুসারী হয়ে উঠতে চেয়েছিলেন। কিন্তু অস্তিত্ববাদী বলেই তার পক্ষে মার্কসের প্রতি অনুরাগ বজায় রাখা কিংবা প্রকৃত মার্কস অনুসারী হওয়া বা থাকা সম্ভব ছিল না। সার্ত্রেসহ কোনো অস্তিত্ববাদীই ‘পূর্বসূরি’দের খুব বেশিদিন সঙ্গে নিয়ে চলার পক্ষপাতী নন। রণেশ দাশগুপ্ত আমাদের স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন, ‘কোনো মহৎ শিল্পীরও মৃত্যুর পর সার্ত্রে তাকে বড়জোর এক পুরুষ পর পর্যন্ত সজীব সাথী বলে মানতে রাজি আছেন।’ কাজেই সার্ত্রীয়সহ সব অস্তিত্ববাদীর দৃষ্টিতেই রবীন্দ্রনাথের মতো মহৎ শিল্পীও ইতোমধ্যেই ‘বাসি ফুলের মালা’য় পরিণত হয়েছেন।  মার্কসবাদীদের বিবেচনায় এ রকম দৃষ্টি একান্তই ভ্রান্ত। সদ্য বিগত মানুষদের তো মার্কসবাদীরা ‘সজীব সাথী’রূপে গ্রহণ করেনই, বহু পূর্বকালে বিগত হয়ে যাওয়া মানুষদের সাথিত্বও তারা পরিহার করেন না, বরং সেই মানুষদের রেখে যাওয়া সম্পদের সদ্ব্যবহার ঘটিয়ে নিজেদের সমৃদ্ধ থেকে সমৃদ্ধতর করে তোলেন। মহামতি লেনিনের বিশ্লেষণে বিষয়টি উঠে এসেছে এভাবে- ‘বিপ্লবী প্রলেতারিয়েতের ভাবাদর্শ হিসেবে মার্কসবাদ বিশ্ব ঐতিহাসিক তাৎপর্য অর্জন করেছে এ জন্য যে, তা কখনোই বুর্জোয়া যুগের মূল্যবান সুকৃতিকে বিসর্জন দেয়নি, বরং মানবচিন্তা ও সংস্কৃতির দুই সহস্রাধিক বছরের বিকাশের মধ্যে যা কিছু মূল্যবান ছিল তাকে আত্মস্থ করেছে এবং ঢেলে সাজিয়েছে। এই ‘আত্মস্থ করা’ ও ‘ঢেলে সাজানো’টাই পূর্বসূরিদের ব্যাপারে উত্তরসূরিদের দায়িত্ব।

মহান রুশ লেখক ও চিন্তক তলস্তয়ের প্রসঙ্গ সূত্রে লেনিন মন্তব্য করেছিলেন- ‘কোনো শিল্পী যদি প্রকৃত মহৎ হন তাহলে তার রচনায় বিপ্লবের কোনো না কোনো মর্মগত অংশ প্রতিফলিত না হয়ে পারে না।’ মহৎ শিল্পী রবীন্দ্রনাথের ক্ষেত্রেও কথাটি প্রযোজ্য। মার্কসীয় দ্বান্দ্বিক ও ঐতিহাসিক বস্তুবাদের বিচারে রবীন্দ্রনাথের মতো মহৎ শিল্পীই শুধু নন, মহৎ-অমহৎ বা শিল্পী-অশিল্পী নির্বিশেষে কোনো মানুষের সামান্য কৃতিও ‘ধরার ধুলায় হারা’ হয়ে যায় না, কারো মৃত্যুকেই সমাপ্তি বলে ধরে নেয়া যায় না, যুগ থেকে যুগান্তরে সব মানবিক ঐতিহ্যই প্রবহমান থেকে প্রতিনিয়ত নবায়িত হতে থাকে। রবীন্দ্রনাথের কবিতা বাগানের পঙ্্ক্তি উদ্ধৃত করেও এই মার্কসীয় প্রত্যয়টিকে উপস্থাপন করা যায়। যেমন- ‘শেষ নাহি যে শেষ কথাকে বলবে?/আঘাত হয়ে দেখা দিল আগুন হয়ে জ্বলবে।/... পুরাতনের হৃদয় টুটে আপনি নূতন উঠবে ফুটে,/জীবনে ফুল ফোটা হলে মরণে ফল ফলবে।’ স্মরণ করতে পারি কাজী নজরুল ইসলামের কথাও- ‘মৃত্যু জীবনের শেষ নহে নহে/অনন্তকাল ধরি অনন্ত জীবনপ্রবাহ বহে।’

রবীন্দ্র জন্মশতবার্ষিকী সামনে রেখেই যদিও রণেশ দাশগুপ্তের ‘মার্কসবাদী দৃষ্টিতে রবীন্দ্রনাথ’ প্রবন্ধটি লেখা হয়েছিল তবুও মানতেই হবে যে, প্রবন্ধের বক্তব্যটিকে কেবল রবীন্দ্রনাথ প্রসঙ্গেই আটকে রাখা চলে না কিংবা কেবল অস্তিত্ববাদী দর্শনের ভ্রান্তি নির্দেশেই এটির সীমা নির্ধারিত হয়ে থাকেনি। প্রবন্ধটির তাৎপর্য অনেক গভীর ও কালাতিক্রমী। রণেশ দাশগুপ্তের ভাবনার আলোর প্রক্ষেপণ ঘটিয়ে বর্তমানকালে উদ্ভাবিত ও প্রচারিত অনেক মতবাদেরও বিচার-বিশ্লেষণ করে নিতে পারি আমরা এবং এমনটিই করা উচিত।  বিগত শতকের ষাটের দশকে অস্তিত্ববাদকে আশ্রয় করে মার্কসবাদকে হেয়প্রতিপন্ন করার অপপ্রয়াস চলেছিল যেমন, তেমনই সে শতকেরই পরবর্তী দশকগুলোয় এ রকম অপপ্রয়াসে সংযুক্ত হয়েছিল আরো কিছু অপদর্শন। বিশেষ করে সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়া ও সমাজতান্ত্রিক শিবিরে বিপর্যয় ঘটে যাওয়ার পর থেকে অনেক অনেক অপদর্শনই মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে। একমাত্র মার্কসীয় দর্শনের আলোতেই সেসব অপদর্শনের স্বরূপ দর্শন ও সেসবের অপপ্রভাব থেকে সমাজকে মুক্ত করা সম্ভব।  সমাজতন্ত্রের বিপর্যয়ে সাম্রাজ্যবাদের মদদপুষ্ট বুর্জোয়া তাত্ত্বিকদের খুশি অসম্ভবেরও সীমা ছাড়িয়ে উঠেছিল। এ রকম এক তাত্ত্বিক তো ‘


ইতিহাসেরই সমাপ্তি’ ঘোষণা করে বসেছিলেন অর্থাৎ ফ্রান্সিস ফুকোয়ামা নামক এই তত্ত্ববিদের মতে, পুঁজিবাদী ব্যবস্থাই চিরকাল অচল-অনড় হয়ে থাকবে, এ ব্যবস্থাতেই ইতিহাসের প্রবহমানতা নিস্তব্ধ হয়ে যাবে। ফুকোয়ামার তত্ত্বকে সত্য বলে মেনে নিলে একালের পুঁজিবাদী সাম্রাজ্যবাদের মোড়লটিকেই বিশ্বেশ্বর সর্বশক্তিমান প্রভুরূপে মেনে নিতে হবে এবং এ প্রভুত্বের অবসান কখনো কেউই ঘটাতে পারবে না- সে কথাও না মেনে উপায় থাকবে না।  আরেক তাত্ত্বিক স্যামুয়েল হান্টিংটন মার্কসীয় শ্রেণিসংগ্রামের তত্ত্বকে ফুঁ মেরে উড়িয়ে দিতে চাইলেন এবং ‘সভ্যতার সংঘাত’ নাম দিয়ে সৃষ্টি করলেন এক অপতত্ত্ব, প্রকৃত প্রস্তাবে যাতে অসভ্যতারই আগমনী গান গাওয়া হয়েছে। ফুকোয়ামা-উদ্ভাবিত অপতত্ত্বের বাস্তব প্রয়োগকে সুনিশ্চিত করার জন্যই যেন হান্টিংটন সাহেব কোমর বেঁধে লেগেছেন। তার মতে, সাম্রাজ্যবাদী পশ্চিমা দুনিয়াই হলো খাঁটি সভ্যতার একমাত্র ধারক। এর বাইরের চৈনিক, জাপানিজ, ইসলাম, হিন্দু, সøাভিক ও লাতিন আমেরিকান- এ রকম সব সভ্যতা একেবারেই মেকি অথবা নিম্নমানের, সভ্যতা নামের যোগ্যই নয় এগুলো। সংঘাতের মধ্য দিয়ে এগুলোর পরাভব ঘটিয়ে একমাত্র পশ্চিমা সভ্যতাই যখন একমাত্র নিরঙ্কুশ সভ্যতারূপে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করবে, তখনই ঘটবে সভ্যতার সংঘাতের অবসান। বুঝতে একটুও অসুবিধা হয় না যে, শ্রেণিসংগ্রামই ইতিহাসের চালিকাশক্তি- এই মার্কসীয় প্রত্যয়ের বিরুদ্ধে সভ্যতার সংঘাতের কল্পতত্ত্বটিকে দাঁড় করানো হয়েছে এমন এক সময়ে, যখন এককালের অনেক মার্কসবাদিত্ব বিভ্রান্তির গাড্ডায় পড়ে ‘প্রাক্তন মার্কসবাদী’তে পরিণত হয়েছেন অথবা সংশয়ের দোলায় দুলছেন। এ সময়কার ভাবজগতের পরিচয় দিতে গিয়ে আমাদের দেশেরই একজন বিশিষ্ট চিন্তক অথচ স্বল্পপরিচিত- গোলাম ফারুক খান একটি প্রবন্ধে লিখেছেন :

“সাম্প্রতিক দশকগুলোয় চিন্তার জগতে প্রতিষ্ঠিত পুরনো প্রত্যয়গুলোর জায়গায় অনেক নতুন ধ্যান-ধারণা এসে জুড়ে বসেছে- ইতিহাস-আলোচনায় তাই রাজনীতির চেয়ে ডিসকোর্স, অর্থনীতির চেয়ে আত্মপরিচয়, বস্তুগত বিষয়ের চেয়ে সাংস্কৃতিক বিষয় এবং শ্রেণির চেয়ে সম্প্রদায় বড় হয়ে উঠেছে।... পোস্টমডার্নিজম ও পোস্ট কলোনিয়ালিজম নামের বৃহত্তর চিন্তা কাঠামোর মধ্যে ডালপালার মতোই গজিয়ে ওঠা সাব-অলটার্নবাদ, নয়া-ঐতিহ্যবাদ, কমিউনিটারিয়ানবাদ, জাক লাকাঁপন্থী উত্তরাধুনিক ফ্রয়েডবাদ ইত্যাদি নানান ঘরানার নতুন মনন-প্রবণতাগুলো সম্পর্কে একেবারে অসহিষ্ণু না হয়েও এ কথা হয়তো বলা যায় যে, বাইরের তফাত যা-ই হোক কিছু মৌলিক জায়গায় তাদের অবস্থান খুব কাছাকাছি। আজকের ‘পোস্টমার্কখচিত’ বুদ্ধিবৃত্তিক আবহে মানবমুক্তির দর্শনমাত্রই এক ‘গ্র্যান্ড ন্যারেটিভ’ যা কোনো না কোনো পূর্বনির্ধারিত লক্ষ্যে চালিত এবং বিশেষকে ভুলে সামান্যে নিবদ্ধ। ইতিহাসের যাত্রা ইতোমধ্যে ‘সমাপ্ত’। প্রগতির ধারণা এখন ইউরোপকেন্দ্রিকতার জন্য নিন্দিত।...
বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি এবং বিজ্ঞানের গ্রহণযোগ্যতাও এখন নানানভাবে প্রশ্নবিদ্ধ- বলা হচ্ছে, বিজ্ঞান ‘আগ্রাসী’ ও ‘পিতৃতান্ত্রিক’ এবং যাকে আমরা বৈজ্ঞানিক সত্য বলে জানি কোনো বিজ্ঞান-ব্যতিরেকী উপায়ে লব্ধ সত্যের চেয়ে বাড়তি মর্যাদা পেতে পারে না।”
এমন সব অপভাবনার কবলে পড়ে বামপন্থীদেরও অনেক গোষ্ঠী মার্কসবাদী বুলি আউড়িয়েই মার্কসীয় দর্শনের অনেক প্রকার বিকৃত ভাষ্য প্রচার করছে এবং নানান বিভ্রান্তি ছড়িয়ে কমিউনিস্টবিরোধী ঔদ্ধত্যের প্রকাশ ঘটাচ্ছে। তাদের সম্পর্কে একালের প্রখ্যাত মার্কসবাদী চিন্তাবিদ এজাজ আহমদের নির্দ্বিধ অভিমত হলো :


‘দক্ষিণপন্থীদের দুনিয়াজোড়া আক্রমণ, বামপন্থীদের পশ্চাদপদসরণ, এমনকি আমাদের জাতীয়তাবাদের মধ্যে প্রগতিশীল যা কিছু ছিল সেটুকুরও পশ্চাৎগতি আমাদের বুদ্ধিবৃত্তিক সামগ্রীর উৎপাদন এবং তাদের গ্রহণযোগ্যতা বিশ্লেষণের মূলগত পরিপ্রেক্ষিত তৈরি করে দিয়েছে। এই পুনর্বিন্যস্ত বিশ্বপরিসরে আমরা সব বুর্জোয়া দেশেই সম্পূর্ণ নতুন বুদ্ধিজীবীর প্রাধান্য দেখছি। তারা জায়গা করে নিয়েছে বামপন্থি বলে দাবিদার একটি শিবিরে। এই নতুন বুদ্ধিজীবীদের স্বভাবসুলভ ঠাট-ঠমকগুলো এ রকম- তারা অনবরত বিপুল উৎসাহে তৃতীয় বিশ্ব, কিউবা, জাতীয় মুক্তি ইত্যাদি বুলি আউড়ে বামপন্থি মহলে বৈধতা পেতে চায় আবার তারা খোলাখুলি ও উদ্ধতভাবে কমিউনিস্টবিরোধী। অনেক সময় তারা এমনকি ধ্রুপদী মার্কসবাদের উৎসজাত অন্য ঐতিহ্য অর্থাৎ সোশ্যাল ডেমক্রেসির সঙ্গেই নিজেদের জড়াতে চায় না, কোনো ধরনের শ্রমিক আন্দোলনের সঙ্গেও সামান্য পরিমাণে জড়াতে চায় না। কিন্তু নিজেদের জাহির করে বুর্জোয়াবিরোধী বলে। জাহির করে অ্যান্টিইমপিরিসিজম, অ্যান্টিহিস্টরিজম স্ট্রাকচারালিজম হিসেবে প্রচারিত নীৎশীয় ধারার স্পষ্টত প্রতিক্রিয়াশীল নানান ধরনের মানবতন্ত্রবিরোধিতার নামে, বিশেষ করে লেভি স্ত্রাউস, ফুকো, দেরিদা, গ্লাকসম্যান, ক্রিস্তেডা প্রমুখের নামে।’

এজাজ আহমদের মতো যারা মার্কসীয় দর্শনের ঘনিষ্ঠ অনুসারী তাদের অনেকেই আজ এখানে-ওখানে গজিয়ে ওঠা মেকি মার্কসবাদীদের স্বরূপ উন্মোচনের এবং এর বিপরীতে মার্কসীয় দর্শনের প্রকৃত তাৎপর্য উদ্ঘাটনের দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। সেই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তাদের অনেক বেশি শ্রমশীল হতে হচ্ছে, প্র্যাগমাটিজম থেকে পোস্টমডার্নিজম ও নিও-লিবার‌্যালিজমসহ একালীন বুর্জোয়াদের উদ্ভাবিত ও প্রচারিত সব ‘ইজম’ বা ‘বাদ’-এর চুলচেরা বিশ্লেষণ করে এসবের ভ্রান্তি নির্দেশের দায়িত্ব গ্রহণ করতে হচ্ছে। আবার প্রকাশ্য বিরোধিতাকারী যারা, তেমন শত্রুদের মোকাবিলার পাশাপাশি গায়ের পাশ ঘেঁষে থাকা ভ- মিত্রদের ভ-ামি সম্পর্কেও সচেতন ও সতর্ক থাকতে হচ্ছে। সচেতন সতর্কতায় মার্কসবাদকেও প্রতিনিয়ত ধারালো ও শানিত করে তুলতে হচ্ছে। কারণ সব স্থিতধী মার্কসবাদীই জানেন- মার্কসবাদ কোনো অচল-অনড় ‘ডগমা’ নয়, বিভিন্ন দেশে ও কালে এর প্রয়োগ পদ্ধতিতে যে বৈচিত্র্য দেখা দেয়, সেই বৈচিত্র্যই এর তত্ত্বকেও সমৃদ্ধ ও বহুমুখী করে তোলে। তত্ত্বের সমৃদ্ধি সাধনে সতত নিয়োজিত আছেন যেসব ধীমান সাধক তাদের ভাবনাকে পাথেয় করেই আমাদের পথ চলতে হবে, চলতে চলতেই আরো পাথেয় সংগ্রহ করে নিতে এবং অতীতের ভ্রান্তির অপনোদন ঘটাতে ও ভবিষ্যতের নিশানা খুঁজতে হবে।

মনে রাখতে হবে, মার্কসবাদের যে দর্শন ডায়ালেকটিক বস্তুবাদ সেটি কোনো ‘রেডিমেড’ তত্ত্ব বা দর্শন নয়। যে দর্শনের নামের সঙ্গে যুক্ত আছে  ‘ডায়ালেকটিক’ কথাটি সে দর্শনটি নিজেও নিশ্চয়ই ডায়ালেকটিকের নিয়মের অধীন। প্রতিটি তত্ত্বেরই যেমন চিরায়ত উপাদানের পাশাপাশি থাকে তার একান্ত সাময়িক ও আপেক্ষিক উপাদান তেমনটিই আছে মার্কসবাদ তথা ডায়ালেকটিক বস্তুবাদের ক্ষেত্রেও। ডায়ালেকটিক বস্তুবাদী দর্শন দেখিয়েছে যে, ইতিহাসের বিকাশধারা যতো স্তর অতিক্রম করে চলে, সেই প্রতিটি স্তরেই বিশেষ বিশেষ ধরনের সামাজিক নিয়মের উদ্ভব ঘটে এবং স্তরান্তরে গিয়ে অথবা স্তরান্তরে যাওয়ার পথেই পুরনো নিয়ম বাতিল হয়ে যায় ও নতুন নিয়ম দেখা দেয়। মার্কসবাদের এসব সাময়িক ও আপেক্ষিক উপাদানকে এর মূলতত্ত্বের চিরায়ত উপাদানের সঙ্গে এক করে ফেললেই ঘটে যায় নানান ধরনের ভ্রান্তি ও বিপত্তি। অতীতে এবং বর্তমানেও মার্কসবাদীরা বারবার এসব ভ্রান্তি ও বিপত্তির খপ্পরে পড়েছে এবং পড়ছে। অথচ মার্কসবাদের উদ্ভব যুগেই ফ্রেডারিক অ্যাঙ্গেলস জানিয়ে রেখেছিলেন-
‘...সমস্ত অনুক্রমিক ঐতিহাসিক ব্যবস্থাই উত্তরণকালীন প্রবহমান স্তর মাত্র। ...প্রতিটি স্তরই প্রয়োজনীয় এবং সেহেতু যে সময়ে ও যে কারণ থেকে তার উৎপত্তি সেই বিবেচনায় তা যুক্তিসঙ্গত... এতে (অর্থাৎ ডায়ালেকটিক দর্শনে) কোনো কিছুই চূড়ান্ত পরম, পবিত্র নয়... ডায়ালেকটিক দর্শন... স্বীকার করে যে, জ্ঞান ও সমাজের নির্দিষ্ট স্তরগুলো তাদের জন্য নির্দিষ্ট সময় ও পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তিসম্মত। কিন্তু কেবল এতোটুকুই মাত্র।

এ দৃষ্টিভঙ্গির (ডায়ালেকটিক দর্শনের) রক্ষণশীলতা একান্তই আপেক্ষিক; এর বিপ্লবী চরিত্রই হলো পরম সত্য- যে একমাত্র পরম সত্যকে ডায়ালেকটিক দর্শন স্বীকার করে।’  (দ্রষ্টব্য : ‘খঁফরিম ঋঁষবিৎনধপয’, চৎ. চঁন. গড়ংপড়ি ১৯৬৪, চধমব-১২)
অ্যাঙ্গেলসের এ বক্তব্যকে চিন্তা-চেতনায় সদা জাগ্রত না রাখলে মার্কসবাদের প্রকৃত তাৎপর্য অনুধাবন এবং এর যথাযথ প্রয়োগে ভ্রান্তিমুক্ত হওয়া যাবে না, বিপত্তির হাত থেকেও মুক্তি ঘটবে না।  বিশ শতকের শেষ দশকে সমাজতান্ত্রিক বিশ্ব ব্যবস্থায় অচিন্তিত-পূর্ব বিপর্যয় ঘটে যাওয়ার পর মার্কসবাদীদের জন্য ভ্রান্তিমুক্ত হওয়া ও বিপত্তি সম্পর্কে সচেতন থাকা আগের চেয়েও অনেক বেশি জরুরি হয়ে উঠেছে। সারা দুনিয়ার মার্কসাবদীদেরই আজ নির্মোহ আত্মজিজ্ঞাসার মুখোমুখি দাঁড়াতে হবে। তবে সেই আত্মজিজ্ঞাসা যেন কোনোমতেই আত্মধিক্কারে পর্যবসিত না হয়। বিপ্লবের পথে চলতে গিয়ে মার্কসবাদীরা কেবলই ভুল করেনি কিংবা কেবলই বিপত্তির খপ্পরে পড়ে থাকেনি। নিকট-অতীতের ইতিহাসের দিকে তাকালেই দেখা যায় যে, মার্কসবাদীদের অর্জন অনেক। সমাজতান্ত্রিক বিশ্ব ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে যাওয়ার পরও সেসব অর্জনের সবকিছুই হারিয়ে যায়নি বা যাবে না। মাত্র ৭০ বছর টিকে থেকেই সোভিয়েত নেতৃত্বাধীন সমাজতান্ত্রিক বিশ্ব বিভিন্ন দেশে যে সমর্থক প্রভাব রেখে গেছে, তথাকথিত বিশ্বায়নের যুগেও তা বহুলাংশে অম্লান আছে ও থাকবে এবং অতীতের ভ্রান্তি সংশোধন করে বিবিধ বিপত্তিকেও প্রতিহত করবে। ইতোমধ্যেই সাম্রাজ্যবাদের মোড়ল যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের একটা উল্লেখযোগ্য অংশের মধ্যে ওয়াল স্ট্রিট দখলের সেøাগান এবং শতকরা একজন একচেটিয়া পুঁজিপতির বিরুদ্ধে নিরানব্বই জনের অধিকার প্রতিষ্ঠার আওয়াজ শোনা যাচ্ছে। পুঁজিবাদী ব্যবস্থার সংকটই এর আশু বিপর্যয়ের সংকেত দিচ্ছে।


এসব নিয়ে অনেক কথা বলা যায়। তবে সেসব কথা বলে আমাদের বর্তমান আলোচনাকে প্রলম্বিত করার কোনো প্রয়োজন নেই। লেখাটি শুরু করেছিলাম বিশ শতকের বুর্জোয়াদের ‘অস্তিত্ববাদ’ নামক দর্শন সম্পর্কে মার্কসবাদী মনীষী রণেশ দাশগুপ্তের বক্তব্য দিয়ে। রণেশ দাশগুপ্ত তার ছোট্ট লেখাটিতে মৃত্যু সম্পর্কে অস্তিত্ববাদীদের নৈরাশ্যজনক বক্তব্যের বিরোধিতা করতে গিয়েই মার্কসীয় দর্শনের মৃত্যুঞ্জয়ী ভাবনাকে পাঠকের সামনে তুলে ধরেছেন। মৃত্যুঞ্জয়ী মার্কসীয় দর্শনের কাছে একালীন বুর্জোয়াদের উদ্ভাবিত সব অপদর্শনই হার মানতে বাধ্য। অস্তিত্ববাদী দর্শনের ভ্রান্তি উদ্ঘাটনে রণেশ দাশগুপ্ত যেভাবে মার্কসীয় দর্শনকে ব্যবহার করেছেন, সেভাবেই অন্যসব অপদর্শনের ভ্রান্তি-নির্দেশে আমাদের প্রবৃত্ত হতে হবে। তেমনটি করলে শুধু নানানবিধ অপদর্শনের অপপ্রভাব থেকেই মুক্ত হব না, মৃত্যুঞ্জয়ী মার্কসীয় দর্শনের প্রত্যয়ের আলোতে পথ চলে আমরাও সব মৃত্যুকে জয় করে নেবো। শুধু মৃত্যুকে জয় করা নয়, জয় করে নেবো অতীতকেও। ‘মৃত্যু জীবনের শেষ নহে নহে/অনন্তকাল ধরি অনন্ত জীবনপ্রবাহ বহে’- এ কথা যেমন সত্য, অতীত যে অতীতেই বিলীন হয়ে যায় না সে কথাও তেমনই সত্য। অতীতের পৃষ্ঠপটেই গড়ে ওঠে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ- এটিও অমোঘ বৈজ্ঞানিক প্রত্যয়। কেবল মার্কসবাদীরাই নয়, প্রখ্যাত মার্কিন লেখক উইলিয়াম ফকনারও একই প্রত্যয়ের সঙ্গে বলেন, ‘দি পাস্ট ইজ নেভার ডেড, ইন ফ্যাক্ট দেয়ার ইজ নো পাস্ট।’  এমন প্রত্যয়ের সঙ্গে পথ চললে কোনো অপশক্তিই কি আমাদের পথভ্রষ্ট করতে পারবে?

 

Read 117 times

About Us

Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipisicing elit, sed do eiusmod tempor incididunt ut labore et dolore magna aliqua.

Duis aute irure dolor in reprehenderit in voluptate velit esse cillum dolore eu fugiat nulla pariatur.

Read More

We use cookies to improve our website. By continuing to use this website, you are giving consent to cookies being used. More details…