Page 1 of 3

ক্যানভাসের কবি কালিদাস

 

শিল্পরসিকদের নানাভাবে মোহবিষ্ট করার ক্ষমতা রাখেন যে চিত্রশিল্পী তিনি আর কেউ নন বাংলাদেশের প্রথিতযশা নিরীক্ষাধর্মী কাজের জন্য বিখ্যাত কালিদাস কর্মকার। এই চিত্রশিল্পীকে এখনো ছুঁতে পারেনি বার্ধক্য। তাঁর কাজে-কর্মে, শিল্পবোধে তাই ছুঁয়ে যায় তারুণ্যের উচ্ছ্বলতা। তাঁর ছবিতে মানবীয় অভিজ্ঞতা, জ্ঞাতী সম্পর্কের ভাষা ইত্যাদি মুহূর্তেই মূর্ত করে তোলেন। তার ছবির শেকড় গাঁথা এ জনপদেরই মাটিতে। অ্যাক্রিলিক, মিশ্র মাধ্যম, গোয়াশ, কোলাজ, ওয়াশি, মেটাল কোলাজ, ড্রইং, ডিজিটাল লিথো, মিশ্র- নানান মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলেন জীবনের উপজীব্য। জীবন প্রণালি, নানান ধর্মের সমন্বয়, লোকশিল্পের বিভিন্ন প্রতীক উপাদান হিসেবে চলে আসে তাঁর বিস্ময়কর শিল্প সৃষ্টিতে। তাঁর চিত্রকলায় এ জনগোষ্ঠীর বিভিন্ন উত্থান উপাখ্যান ও আন্দোলনের অনুষঙ্গে এসেছে যখন হাতের যা কাছে পেয়েছেন তা দিয়েই। তাঁর ছবিতে ধরা পড়েছে মৃত্যুমুখ যোদ্ধার যন্ত্রণাকাতর অভিব্যক্তি, এসেছে আবহমান বাঙালির ষোল কলাসহ নানান বিষয়। তাঁর এসব অনবদ্য সৃষ্টির কোথাও অস্পষ্টতাও দেখা যায়নি।

এবছরে একুশে পদকে ভূষিত খ্যাতনামা এ শিল্পীর সাথে সহজের কথোপকথনে উঠে এসেছে শিল্পীজীবনের নানা উপাখ্যান। শিল্পী হয়ে ওঠার গল্পে তিনি বললেন, ‘যেহেতু আমি কর্মকার পরিবারের সন্তান সেহেতু শৈশবেই বড়দের দেখাদেখি আঁকতে শুরু করি। ওই সময় কলকাতা থেকে জয়নুল আবেদিনসহ অন্য কয়েক প্রথিতযশা শিল্পী এসে ঢাকায় আর্ট কলেজ স্থাপন করলে স্কুল জীবন শেষে ঢাকা ইনস্টিটিউট অফ আর্টস-এ ভর্তি হই এবং ১৯৬৩-৬৪ সালে চিত্রকলায় আনুষ্ঠানিক ডিগ্রি লাভ করি। এরপর কলকাতার গভর্নমেন্ট কলেজ অফ ফাইন আর্টস অ্যান্ড ক্রাফট থেকে ১৯৬৯ সালে প্রথম বিভাগে প্রথম স্থান নিয়ে চারুকলায় ¯œাতক ডিগ্রি অর্জন করি।’

সহজের প্রশ্ন ছিল আপনি নিজেকে কোন ঘরানার শিল্পী বলে মনে করেন? তিনি কিছুটা আবেগপ্রবণ হয়ে বলেন, ‘নিজেকে র্শিল্পী মনে করি না আমি। সারা জীবন নতুন কিছু করতে চেয়েছি। যা কিছু করেছি সবই নিরীক্ষা। সারা বিশ্বে ছোটাছুটি করে কাজ করতে পছন্দ করি যাতে আমাদের চিত্রশিল্প আধুনিক থেকে আধুনিক হয়ে ওঠে।’
আপনার ক্যানভাসে কী বলতে চান এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘আমি ছবি আঁকি নিজের জন্য, দেশের জন্য মানুষ নিয়ে আমার বেদনার কথা বলতে চাই ক্যানভাসে।

প্রদর্শনী বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলে, বললেন- দেশে-বিদেশে এ পর্যন্ত আমার নির্বাচিত চিত্র প্রদর্শনীর সংখ্যা ৭১। এছাড়া আন্তর্জাতিক দলবদ্ধ বহু প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করেছি।
নিরীক্ষাধর্মী কাজ করতে আপনার কেমন লাগে? তিনি বললেন, ‘আমি দেশে তো করিই। তাছাড়া ভারত, পোলান্ড, ফ্রান্স, জাপান, আমেরিকায় আধুনিক শিল্পের বিভিন্ন মাধ্যমে উচ্চতর ফেলোশিপ নিয়ে সমকালীন দেশ-বিদেশে কাজের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চলেছি। ফ্রিল্যান্স শিল্পী হিসেবে এসব করছি সেই ১৯৭৬ সাল থেকে।’
ছাপচিত্র সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে আমিই প্রথম ছাপচিত্রের প্রচলন করেছি। এটা এখন ঘরে-ঘরে হচ্ছে।’
মূর্ত ও বিমূর্ত প্রশ্নে, তিনি বলেন, ‘পৃথিবীতে বিমূর্ত বলে কিছু নেই। সবকিছুই মূর্ত। সবকিছু নির্ভর করছে আপনার চোখ ও মন ওই জিনিসটিকে কীভাবে বা কত গভীরভাবে দেখছে এর ওপর। আপনি একটি শিশির ফোঁটা একটি ঘাসের ডগাতে দেখলে তা সেভাবেই দেখেন। কিন্তু তা কখন কোন রঙের বিচ্ছুরণ ঘটায় সেটিই কোনো শিল্পী তার চিত্রে ধারণ করেন। এটিকেই আমরা বিমূর্ততা বলি। আসলে সবই মূর্ত।’

খ্যাতিমান শিল্পী হিসেবে বর্তমানে আমাদের শিল্পাঙ্গনে কীসের অভাব বোধ করেন? উত্তরে বলেন, ‘বিশ্বের সব দেশে, এমনকি সদ্য স্বাধীনতাপ্রাপ্ত একটি দেশেও যে জিনিসটি রয়েছে তা আমাদের এই স্বাধীনতাপ্রাপ্তির ৪৭ বছর পরও আমরা পেলাম না। অতি দুঃখ ভরে জানাতে হচ্ছে, আমাদের দেশে কোনো জাতীয় আর্ট গ্যালারি নেই। দেশের বিখ্যাত ১০ শিল্পীর শিল্পকর্ম এক সঙ্গে দেখা যাবে- এমন কোনো চিত্রশালা বা আর্ট মিউজিয়াম নেই। অথচ জাতীয় চিত্রশালা হলো কোনো দেশের সংস্কৃতি ও সভ্যতার ধারক-বাহক। আশা করি, স্বাধীনতার পক্ষের সরকার আমাদের এ দাবিটির বাস্তবতা অনুধাবন করে দ্রুত যথাযথ ব্যবস্থা নেবে। এছাড়া এটি যেহেতু খুব বড় খরচের ব্যাপার নয় সেহেতু ব্যক্তি পর্যায়েও অনেকে এগিয়ে আসতে পারেন।’

মানুষ ধীরে ধীরে এসব প্রর্দশনী ও ললিতকলার ব্যাপারগুলো থেকে দূরে চলে যাচ্ছে এর কারণ কী বলে মনে করেন? ‘এ ব্যাপারে দারিদ্র্যকে দায়ী করা যায় না। কিন্তু আমাদের বর্তমানের অবিশ্রাম যানজট জীবনকে বিপর্যস্ত করে তুলেছে। কোথায় কখন পৌঁছাতে

পারবো তা আমরা কেউই জানি না। রাস্তার মধ্যেই মানুষের মন মরে যায়, সুখ উড়ে যায়- সে কীভাবে তখন বিভিন্ন প্রদর্শনীতে যাওয়ার কথা চিন্তা করবে! এই যানজট আমাদের কাজের একটা অন্তরায়। এটি শুধু আমাদেরই নয়, রাষ্ট্রীয় অনেক কাজেই স্থবিরতা নামিয়ে এনেছে। এই অঞ্চলের মানুষের মন পলির মতোই নরম। রাজনৈতিক অস্থিরতা, ক্ষমতার লড়াই, বঞ্চনার শিকার ইত্যাদি কারণে মানুষের মন বসে যাচ্ছে। তবে এত অস্থিরতার পরও শেষ পর্যন্ত মানুষ জেগে উঠছে নিজস্ব পরিক্রমাতেই।’

শিল্পী না হলে কী হতে চাইতেন প্রিয় কালিদাস? ‘আমি কর্মকার পরিবারের সন্তান। জন্মের পরই দেখেছি আমাদের পরিবারের সবাই ভালোবেসে নিজের মন থেকে শিল্প সৃষ্টির কাজ করে যাচ্ছেন এবং সবাই মানসিক আনন্দে রয়েছে। আমিও হাতে কাজ তুলে নিই। শিল্পী হিসেবে কাজ করতে থাকি। দ্বিতীয় কোনো চিন্তা-ভাবনা করার সুযোগ আসেনি, চেষ্টাও করিনি। তাছাড়া আমার ছোট দুই ভাইও শিল্পী। তারা ইউরোপে কাজ করে পুরস্কৃত হয়েছে।’

পরিবার সম্পর্কে জানতে চাইলে শিল্পী জানান, ‘আমার দুই মেয়ে। তারা দু’জনই বিদেশে রয়েছে। আমার স্ত্রী বহুদিন আগেই পরপারে চলে গেছে। আমি এখন নিঃসঙ্গ জীবন কাটাচ্ছি আর শিল্প ভাবনায় ডুবে আছি।’
পুরস্কার ও প্রাপ্তি সম্পর্কে কোনো আক্ষেপ আছে? উত্তরে ক্যানভাসের কবি কালিদাস জানান ‘মানুষের ভালোবাসাই আমার সবচেয়ে বড় পুরস্কার। শিল্পকলার ‘শিল্পী সুলতান পুরস্কার’ পেয়েছি। এ বছর (২০১৮) ‘একুশে পদক’ পেলাম। আন্তর্জাতিকভাবেও অনেক পুরস্কার পেয়েছি।’

শিক্ষকতা করার প্রসঙ্গে বলেন, ‘না, কোথাও শিক্ষকতা করিনি, এখনো করছি না তবে, যাদের না করতে পারি না তারা বাসায় এসে কাজ শেখে। শিক্ষকতা বলতে যা বোঝায় সেটি বাসাতেই করি।’
মনের মতো ছবিটি এঁকেছেন কিনা প্রশ্নের উত্তরে হেসে বললেন, ‘না, তা পারিনি। তবে বহু ভালো ছবি এঁকেছি। বেঁচে থাকলে চেষ্টা চালিয়ে যাবো।’
শিল্পীর চেষ্টা অব্যাহত থাকুক। সহজের পক্ষ থেকে তাঁর প্রতি আমাদের আন্তরিক অভিবাদন।

 

প্রশ্ন ও সম্পাদনা : সহজ ডেস্ক
অনুলিখন : রাশেদ মামুন
ছবি : আরাফাত

রবীন্দ্রনাথ আবার আসবে বলেছিল

প্রফেসর ড. মো.আমিরুল মোমেনীন চৌধুরী

 

মেয়েটা প্রথম কথা বললো
তুমি কি রঙের জাদুকর?
: জাদুকর নই। আমি শিল্পী। ছবি আঁকি।
তবে রঙ নিয়ে খেলছ যে বড়!
: খেলছি কোথায়, ছবি আঁকছি।
তোমার কাছে কাগজ নেই? তখন থেকে কোরা কাপড়ে কী ঘষছ?
: এটা কোরা কাপড় নয়, প্রিপারেশন করা সাদা ক্যানভাস। আমি তো রঙ-তুলি দিয়ে ছবি আঁকছি।
ছবি না ছাই আঁকছ। কালো রঙ শুধু খরচ হচ্ছে, কিছুই তো হচ্ছে না।
: তেলরঙের ছবি। আদল ফুটে ঊঠতে সময় লাগবে। আমার তো করার কিছুই নেই। আর কালো রঙ কোথায় দেখছ, এ তো লাল রঙ।
আমি দেখছি কালো আর তুমি বলছ লাল।
: নিশ্চয় তোমার পূর্বপূররুষ মৌমাছি ছিল।


তা হবে কেন?
: মৌমাছি লাল রঙ দেখতে পায় না। লালকে কালো দেখে। তাই তো মৌচোর মৌমাছিগুলো লাল ফুলে বসে না। আমাদের চোখে যে ফুল একই রঙের, মৌমাছির কাছে তা ধরা দেয় নানান রঙে।
আমি তো জানতাম না।
: সব কথা জানতে হবে, এর কোনো মানে নেই। আমিও অনেক কিছু জানি না।
তুমি বলছ, তোমার ছবিতে লাল রঙ।
: সে তো সবাই বলবে। তা ছাড়া কালো তো কোনো রঙই নয়।
তাহলে যে কালোকে রঙ বলি! আমার কাজল কালো চোখ, মেঘ কালো চুল, কপালের কালো টিপ সবই কি মিথ্যা?
: কোনোটাই মিথ্যা নয়।
তুমি যে বললে।
: কালো হলো সব রঙের অসমসত্ত্ব মিশ্রণ।
তাহলে সাদা রঙ?
: সাদা হলো সব রঙের সমসত্ত্ব মিশ্রণ।
তাহলে ওই রঙ ছবিতে ঘষে লাভ নেই, বরং আমার কপাল দেখো কেমন হাট হয়ে আছে। এতে লাল রঙ ঘষে দাও।
: তোমার কপালে লাল রঙ ঘষবো!
হ্যাঁ, তাই তো বলছি। দেখছ না, কপালে সিঁদুর নেই। সিঁদুর ছাড়া মেয়েদের কপাল মানায়।
: এ তো রঙ। সিঁদুর নিয়ে এসো পরিয়ে দিই।
সিঁদুরের কৌটা হারিয়ে ফেলেছি সেই কবে রবীন্দ্রনাথ যখন প্রথম এসেছিল।
: তুমি রবীন্দ্রনাথকে দেখেছ?
দেখবো না কেন! সেই তো আমাকে পতিসরে নিয়ে এলো।
: তোমার বয়স কতো? বরীন্দ্রনাথ পতিসরে এসেছিলেন ১৮৯১ সালে।
মেয়েদের বয়স জানতে নেই।
: তুমি কোথায় থাকো?
তা তো বলবো না।


: রবীন্দ্রনাথ পতিসরে বসে কোন কোন কবিতা, গল্প লিখেছিলেন তা তুমি জানো?
জানি। ঘরে বাইরে, শাস্তি, চৈতালীর ঋতুসংহার, চিত্রার পূর্ণিমা আর সন্ধ্যা।
: তুমি রবীন্দ্রনাথকে ভালোবাসো।
রবীন্দ্রনাথকে সবাই ভালোবাসে।
: তুমি রানু, না কাদম্বরী?
রবীন্দ্রনাথকে ভালোবাসতে রানু বা কাদম্বরী হতে হবে কেন?
: তুমি কি জানো, রবীন্দ্রনাথও বর্ণান্ধ ছিল। রবীন্দ্রনাথ সব রঙকে চিনতে পারতেন না। রঙকানা ছিলেন তোমার রবীন্দ্রনাথ।
তুমি কি আমাকে বোকা বানাচ্ছ?
: বোকা বানাবো কেন? পৃথিবীর অনেক মানুষ আছে যারা বর্ণান্ধ। বর্ণান্ধতা বা ডাল্টনিজম প্রধানত দুই ধরনের হয়। প্রথমত. শ্রেণিভুক্ত মানুষ লাল ও নীল প্রভাবিত বর্ণটি সবুজের মধ্যে দেখে এবং দ্বিতীয়ত. শ্রেণিভুক্ত মানুষ গোলাপি ও হালকা সবুজের পার্থক্য বোঝে না। আর এক ধরনের বর্ণান্ধ আছে, বিশেষ করে দুর্গম সমুদ্র উপকূলে যারা বসবাস করে এমনই উপজাতির মানুষ পৃথিবীকে সাদা-কালোয় দেখে। বর্ণান্ধতা নারীদের চেয়ে পুরুষের মধ্যে বেশি। ফিজি, নিউ গিনি ও কঙ্গোর পুরুষদের মধ্যে বর্ণান্ধতার প্রকোপ বেশি। মানুষ, বানর বা এপম্যান, মাছ, সরীসৃপ ও কীটপতঙ্গেও বর্ণানুভূতি প্রখর বিশেষ করে যেসব প্রাণীর পরাগায়ণের সঙ্গে সম্পর্ক আছে। চতুষ্পদ স্তন্যপায়ী প্রাণীর কোনো বর্ণানুভূতি নেই।
তাহলে ষাঁড় লাল কাপড় দেখলে ক্ষেপে যায় কেন?
: ষাঁড় তো লাল, নীল, সবুজ আলাদা করে চিনতেই পারে না। যে কোনো রঙের কাপড় দিয়েই ষাঁড়কে উত্তেজিত করা যায়।
তাহলে রবীন্দ্রনাথ জীবনের এতো জয়গান করলেন কী করে?
: সে প্রশ্নটি আমারও। আমারও জানতে ইচ্ছা করে রবীন্দ্রনাথ সত্যিই বর্ণান্ধ ছিলেন কি না। সমস্যা হলো...!
কী সমস্যা?
: রবীন্দ্রনাথই জানিয়েছেন, তিনি বর্ণান্ধ। লাল বর্ণ নাকি তার চোখেই পড়ে না অর্থাৎ ‘প্রটানোপিয়া’। তবু তার ছবিতে লাল বর্ণের সমাহার রোজ ম্যাডায়ার, ক্রিমসন লেক, ভারমিলিয়ন রেড, স্কারলেট রেড, ইন্ডিয়ান রেড। রবীন্দ্রনাথ নীল বর্ণও বড় একটা ব্যবহার করতে চাইতেন না। কিন্তু তার অনেক নিসর্গচিত্রে সমুদ্র বর্ণ নীল, প্রুশিয়ার নীল, কোবাল্ট নীল, আলট্রামেরিন, বিশেষ করে আকাশের পটভূমি গড়ে তুলতে ব্যবহার করেছেন। তবে লালের প্রতি আকর্ষণ সত্ত্বেও হলুদ বা সবুজ বর্ণ যথেষ্ট ব্যবহার করেছেন। যেমন নিসর্গচিত্রে প্রতিকৃতি রচনায় অথবা হলুদের ওপর সবুজ। বর্ণান্ধ থিউরিতে বলা হয়, 

"Colour Blindness is the inability to distinguish the difference between certain colours. The condition results from an absence colour-sensitive pigments in the cone cells of retina, the nerve layer at the back of eye. Most colour vision problems are inherited are present at 1 out of 12 men and 1 out of 20 women. A person with colour blindness has trouble seeing red, blue, or mixture of these colours. The most common type is red-green Colour-blindness where red and green are seen as the same colour"


রঙ নিয়ে আরো কথা আছে। বাইরের জগৎ থেকে আসা তথ্য চোখ সংগ্রহ করে এবং তা মস্তিষ্কে প্রেরণ করার আগে তাৎক্ষণিকভাবে চোখ তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে। চোখ আর মস্তিষ্কের সম্পর্ক খুবই অদ্ভুত ধরনের। চোখের আড়াল হলে মনের আড়াল হওয়া ব্যাপারটি এখানে সম্পূর্ণ উল্টো। এখানে মনের আড়াল হলে চোখের আড়াল অর্থাৎ মন না চাইলে চোখ কী করে দেখবে! এর একটা সহজ প্রমাণ হলো, সাদা কাগজের ওপর লাল রঙের একটি বৃত্ত আঁকতে হবে। এরপর কিছুক্ষণ বৃত্তটির দিকে নির্ণিশেষ তাকিয়ে থেকে হঠাৎ এক সময় দ্রুত দৃষ্টি সরিয়ে নিয়ে আরেকটি সম্পূর্ণ সাদা কাগজে দিকে তাকালে একটি আবছা সবুজ রঙের বৃত্ত দেখা যাবে। এর কারণ হলো, লাল বৃত্তটির দিকে তাকিয়ে থাকার ফলে লাল রঙের প্রতি সংবেদনশীল গ্রাহকযন্ত্র ক্লান্ত হয়ে পড়ে ও স্বল্প সময়ের জন্য তার কর্মক্ষমতা লোপ পায়। তাই আমরা যখন দ্বিতীয় সাদা কাগজটির দিকে তাকাই তখনই ওই কাগজ সমস্ত রঙ প্রতিফলিত করলেও লাল গ্রাহকযন্ত্র ক্লান্ত থাকায় এর কাজ সঠিকভাবে করতে পারে না। অপরপক্ষে নীল ও সবুজ গ্রাহকযন্ত্র সতেজ থাকায় পূর্ণশক্তিতে কাজ করে এবং মুহূর্তের জন্য আমরা লাল রঙের পরিপূরক বলে সবুজ রঙটি দেখতে পাই। এতে এটিই প্রমাণিত হয়, চোখ যে রঙ দেখতে চায়, মন ওই রঙটিই দেখায়।
রঙের এতো কথা!
: আরো কথা আছে। রঙ চিত্রশিল্পে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। রঙ কখনো আলো, কখনো প্রতীক, কখনো পরিপ্রেক্ষিত এবং কখনো বিষয়। চোখ খুললেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে রঙের ভুবন। অক্ষর ও সংখ্যার মতো রঙ মানুষের সহজ ও স্বাভাবিক জীবনের অঙ্গ। রঙের ভাবার্থ, ভাষা ও ব্যঞ্জনার প্রকাশ সাধারণত এভাবে করা হয়ে থাকে
সাদা : পবিত্রতা, শুভ্রতা, শান্তি, বিশ্বাস, আধ্যাত্মিকতা ও আভিজাত্য।
কালো : শ্রীহীন, মলিন, ধ্বংস, শোক ও বিকৃতি।
লাল : প্রেম, আনন্দ, সৌন্দর্য, বিপ্ল¬ব, আশা ও জীবন।
কমলা : হৃদয়াবেগ, কামনা ও উষ্ণতা।
নীল (কোবাল্ট) : সহনশীলতা, রোমান্টিকতা, অসীমতা ও জ্ঞান।
নীল (প্রুশিয়ান ) : ভয়, অস্বস্তি, উদ্বেগ ও হিংস্রতা।
সবুজ : প্রকৃতি, প্রাণ, মুক্তি, সততা, তারুণ্য ও বিশালতা।
হলুদ (লেমন) : ধর্মীয় আবেগ, প্রজ্ঞা, তাপ, আশ্বাস, নৃশংসতা, কাপুররুষতা ও প্রতারণা।


হলুদ (সোনালি) : ঐশ্বর্য, স্বাস্থ্য, বিস্ময় ও সমৃদ্ধি।
বেগুনি : হতাশা, দুঃখ ও নির্জীবতা।
বাদামি : মন্থরতা ও ঔদাসীন্য।
পিঙ্গল : বিষাদ ও বিস্মৃতি।
ধূসর : মৃত্তিকা ও শূন্য প্রান্তর।
চিত্রশিল্পে ব্যবহার উপযোগী রঙ দু’ভাবে ভাগ করা হয়েছে। তা হলো
মৌলিক (অবিমিশ্র) বা প্রাইমারি রঙ : লাল, নীল ও হলুদ।
মাধ্যমিক বা সেকেন্ডারি রঙ : কমলা, বেগুনি, ধূসর, পিঙ্গল, সবুজ, বাদামি, গোলাপি ইত্যাদি।
এবার ছবির কথা বলো। কার ছবি আঁকছ মডেল ছাড়া? তুমি কি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর?
: আমি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হতে যাবো কেন?
তাহলে যে বড় দেমাগ করে মডেল ছাড়া ছবি আঁকছ!
: রবীন্দ্রনাথ ছাড়া কেউ বুঝি মডেল ছাড়া ছবি আঁকতে পারে না?
না, পারে না।
: আমি যে মেয়েকে ভালোবাসি তাকেই আঁকবো ভেবেছি।
সেই মেয়ে কি আমি?
: তুমি নও, অন্য কেউ। তার জন্যই তো আমি এখানে এসেছি।
সে মনে হয় পালিয়ে গেছে, বরং আমার ছবি আঁকো। তোমার মডেল হবো আমি।
: তা কী করে হয়!
কেন হয় না। আমি বুঝি সুন্দর নই?
: তুমি অনেক সুন্দর। যার ছবি আঁকছি সে আরো সুন্দর।
হতেই পারে না।
: হতে পারে না কেন?
আমি বলছি, তাই। ছবি শেষ করে দেখো।
: আমার ছবি শেষ হতে সময় লাগবে।
আমি অপেক্ষা করবো।
: কোথায় যাচ্ছ তুমি? এই যে বললে অপেক্ষা করবে?
আমার বুঝি কাজ নেই? বসে বসে তোমার ছবি আঁকা দেখবো?
: এই যে বললে আমার মডেল হবে।
বয়েই গেছে তোমার মডেল হতে! ওই দেখো।
: কী?
বৃষ্টি থেমে গেছে। আকাশে রামধনু।
: আমরা বলি রঙধনু।


রামধনু বলতে দোষ কী?
: হিন্দু ধর্মের মানুষ ভাবে, ওটা রামচন্দ্রের ধনুক। তাই রামধনু।
মুসলিমরা তা মানতে নারাজ, তাই।
রঙের ধনুক রঙধনু।
: রঙের আবার জাতি-ধর্ম!
জাতি-ধর্মের নয়, ব্যাপারটি বিশ্বাসের। ইংরেজিতে এর নাম রেইনবো। বাংলা নামের অর্থের সঙ্গে এর কোনো মিল নেই। রঙধনুর সাতটি রঙ বেগুনি, নীল, আসমানি, সবুজ, হলুদ, কমলা ও লাল। ইংরেজিতে এর সংক্ষেপ ‘ভিবজিওর’ আর বাংলায় ‘বেনীআসহকলা’।
: কোথায় তুমি? আমি কার সঙ্গে কথা বলছি? ছবি আঁকা শেষ হয়ে গেছে।
ক্যানভাসের ছবির দিকে তাকিয়ে দেখো।
: কী আশ্চর্য! এ তো তোমার ছবি।
তুমি তো আমার ছবিই একেঁছ।
: আমি তো অন্য কারো ছবি আঁকতে চেয়েছিলাম। এটি কী করে সম্ভব হলো!
পৃথিবীতে অসম্ভব বলে কিছু নেই।
: আমার কাছে এসো। তোমাকে তো দেখতে পাচ্ছি না।
আমাকে আর কখনো দেখবে না তুমি।
: তা কী করে হয়!
আমি যে এ রকমই।
: আমি তো তোমাকে ভালোবেসে ফেলেছি।
এই যে বললে, তুমি অন্য কাউকে ভালোবালো?
: সেই মেয়ে যে তুমি তা আমিও জানতাম না।
ভালোবাসার আগে আমার মনের খবর জানা উচিত ছিল।
: তবু তোমাকেই যে আমি ভালোবেসেছি!
আমি যে ক্যানভাসের ছবি হয়ে গিয়েছি।
: ক্যানভাস থেকে বেরিয়ে এসো।
আমি যে তোমার হতে পারবো না!
: কেন পারবে না?
আমি যে অপেক্ষায় আছি!
: কার জন্য অপেক্ষা করে আছ তুমি?
রবীন্দ্রনাথের জন্য।
: রবীন্দ্রনাথের জন্য! তুমি কি পাগল? রবীন্দ্রনাথ আর কখনো আসবে না।
রবীন্দ্রনাথের জীবনে কোনো মিথ্যা নেই।
: এটি সত্য-মিথ্যার কথা নয়। একটি বড় ভুলের মধ্যে আছ তুুমি।
আমি জানি। তবুও আমার কাছে রবীন্দ্রনাথ আবার আসবে বলেছিল।
: পতিসরে অনেক খুঁজেছি তাকে। দেখা হয়নি। শুধু মনে পড়ে
‘জীবন যদি শুকায়ে যায়, করুণা ধারায় এসো, সকল মাধুরী লুকায়ে যায় গীতসুধা রসে এসো ...’

রবীন্দ্রনাথ কি সত্যি আবার আসবে? সে যে বলে গেল!

ঈদে সাজাই ঘর

লেখা : শায়মা হক

 


ঈদ- তা হোক না ঈদুল ফিতর কিংবা ঈদুল আজহা। ঈদ মানেই ওই ছোট্টবেলা। আর ছোটবেলার আনন্দের স্মৃতিতে কিছুটা হলেও হারিয়ে যাওয়া।
ঈদের দু’একদিন আগে ঘরবাড়ি ঝেড়ে-মুছে ঝকঝকে তকতকে করে তোলার নানান প্রস্তুতি। বিছানার চাদর, টেবিল ক্লথ ইস্ত্রি করে ধোপাবাড়ি থেকে ফিরে আসা বা ঈদ উপলক্ষে শত ব্যস্ততার মধ্যেও একটু সময় করে একগোছা ফুল কেনার দৃশ্যগুলো কারই না মনে পড়ে!


শত শত বছর ধরেই ঈদ এলে অন্দর মহলে পড়ে যায় সাজ সাজ রব। অতিথি আপ্যায়নে সেমাই, ফিরনি, জর্দা, কাবাব- নানান সুস্বাদু খাদ্যদ্রব্যের সঙ্গে সঙ্গে ঘরের সাজের দিকেও থাকে যে যার সাধ্যমতো নজর। দিন বদলেছে, বদলেছে নানান আকাক্সক্ষা বা চাহিদাও। এখন শুধু ধোপাবাড়ি থেকে চাদর, পর্দা কাচিয়ে আনাতেই রুচি বা আকাক্সক্ষা সীমাবদ্ধ নয়। এখন নতুন পোশাকের পাশাপাশি উৎসবগুলোয় নতুন কুশন, পর্দা কেনাতেও অনেকেই কার্পণ্য করেন না। তাই তো ঈদের আগের রাতে ফুলের দোকানগুলোতেও দেখা যায় অনেক ভিড়। সবাই চান উৎসবের দিনে একটু তাজা ফুলের সুবাসে সুবাসিত করে তুলতে ছোট্ট গৃহকোণ। কেউ কেউ পুরো বাড়িতে নতুন করে রঙ বা আসবাবপত্র বার্নিশ করে পুরনো জিনিসে নতুনের বৈচিত্র্য এনে ফেলে।


সে যাই হোক। লিখতে বসেছিলাম ঈদের বিশেষ দিনটির বিশেষ গৃহসজ্জা নিয়ে। ঈদের বিশেষ গৃহসজ্জার শুরুটা ভাবতে হবে মূল প্রবেশপথ থেকে। এরপর বসার ঘর, খাবার ঘর, এমনকি শোয়ার ঘর থেকে টয়লেট বা বারান্দা হয়ে কিচেন পর্যন্ত কোনো অংশই অবহেলার যোগ্য নয়। প্রথমেই মূল প্রবেশপথটি সাজানোর দিকে খেয়াল রাখতে হবে এমনই ভাবে যেন সেটি অতিথিকে বাড়িতে স্বাগত জানাতে সহায়তা করে। এখানে বড় বা মাঝারি কারুকার্যময় মাটির পটারি, সবুজ-সতেজ গাছপালা, পাথর, ইদানীংয়ের টেরারিয়াম, ল্যাম্প- এসব ছাড়াও মাটির পাত্রে পানি দিয়ে ফুলের পাপড়ি ছড়িয়ে ফ্লোটিং মোমবাতি জ্বালিয়ে দেয়া যেতে পারে। প্রবেশপথের দেয়াল আয়না ও ছোট কাজ করা টেবিল এবং এতে কিছু শোপিস, ক্যাক্টাস জাতীয় গাছ বা ফোটোফ্রেম সাজিয়ে দেয়া যায়।


এরপরই আসে বসার ঘর বা ড্রয়িং রুমটি। প্রায় সবাই সাধ ও সাধ্যের সমন্বয়ে সাজান ওই ঘর। কেউ কেউ ওই ঘরটি আধুনিক সাজে সাজাতে ভালোবাসেন, কেউ বা দেশীয় উপাদান দিয়ে দেশীয় আঙ্গিকে সাজাতে ভালোবাসেন। সাজের ধরনটি যাই হোক না কেন, উৎসবে প্রতিটি সাজই হওয়া চাই স্নিগ্ধ, উজ্জ্বল, আনন্দময় ও মন ভালো করে দেয়ার মতো।
দেশীয় আঙ্গিকে সাজানো বসার ঘর : এমন একটি ঘরে কাঠ, বেত বা বাঁশের সোফা কিংবা অন্য আরামদায়ক ডিজাইনে বসার ব্যবস্থা করলে ভালো দেখাবে। সোফার কভার, কুশন কভার হতে পারে হালকা বা উজ্জ্বল রঙের। আবার সোফা ও কুশনের কালার কনট্রাস্ট হতে পারে। এখানে পর্দার রঙেরও সামঞ্জস্য থাকতে হবে। পর্দার রঙের সঙ্গে মিলিয়ে মেঝেতে শতরঞ্জি বা শীতলপাটি বিছানো যেতে পারে। দেশীয় ঢঙে সাজানো বসার ঘরে মাটি, কাঠ, বেত বা পাটের তৈরি শোপিস বেশি মানাবে। দেয়ালেও ঝোলানো যেতে পারে কাঠ, পাট বা পেপার ম্যাশের মুখোশ। পটারি ও ল্যাম্পের ব্যবহারও এ ঘরটিকে আলাদা মাত্রা দেবে। আবার ফ্লোরেও বসার ব্যবস্থা করা যেতে পারে। ফ্লোরে নকশিকাঁথার ম্যাট বিছিয়ে বা শতরঞ্জি পেতে বসার আয়োজন করা যেতে পারে। এর ওপর ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রাখা যেতে পারে কিছু রঙিন কুশন ও তাকিয়া। মাটির ফুলদানি বা সিরামিকের বড় জার দিয়ে সাজানো যেতে পারে বসার ঘরের একটা পাশ। দেয়ালে ঝোলানো যায় দৃষ্টিনন্দন আর্ট বা পারিবারিক স্মৃতির ফটোগ্রাফস। বাংলাদেশ শিশু একাডেমির সামনের দোকানগুলোয় ভিন্ন ধরনের কৃত্রিম ফুল, ঝাড়বাতি, ফুলদানি, টেবিল ল্যাম্প, মাটি দিয়ে তৈরি চিত্রকর্ম ও বাঁশের তৈরি নানান সামগ্রী পাওয়া যায় যা দিয়ে দেশীয় ঢঙে ঘর সাজানো মনোরম হয়ে উঠতে পারে।


আধুনিক ঢঙে সাজানো বসার ঘর : আধুনিক ঢঙে সাজানো বসার ঘরে ঈদের সাজের ক্ষেত্রে সোফা ও কুশন কভারের রঙ ব্ল্যাক, অফহোয়াইট, চকলেট, কফি, মেরুন ইত্যাদি হতে পারে। একই সঙ্গে পর্দার রঙটিও হতে হবে সামঞ্জস্যপূর্ণ। তবে পর্দার কাপড়ের ক্ষেত্রে একটু ভারী সিল্ক, নেট বা সিল্কের সঙ্গে লেসের ভারী ডিজাইন ভালো লাগবে। সোফা ও পর্দার রঙের সঙ্গে মিল রেখে মেঝেতে বিছিয়ে দেয়া যায় পুরু কার্পেট। সেন্টার টেবিলটি চৌকোনো, ওভাল বা সার্কেল শেইপের হতে পারে। সার্কেল শেইপের সেন্টার টেবিলের মাঝে ক্রিস্টাল বোলে বেশকিছু রঙিন মার্বেল বা আশপাশে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে শোপিস রাখা যেতে পারে। এছাড়া চৌকোণা বা ওভাল টেবিলে মোম, ছোট গাছ বা শোপিস দিয়ে সাজানো যেতে পারে। ওই সঙ্গে সিলিংয়ে ঝোলানো যেতে পারে ক্রিস্টাল ঝাড়বাতি। ঘরের কোণায় কোণায় সবুজ ইনডোর প্লান্টস ঘরটি সজীব ও প্রাণবন্ত করে তুলবে।


খাবার ঘর : ঈদের সাজে বসার ঘরের পরই ভাবতে হবে খাবার ঘরের সাজসজ্জা নিয়ে। কারণ ঈদের দিনে ওই ঘরেই অতিথি আপ্যায়ন করা হয়। ঈদের উৎসব পূর্ণতা পায় খাবার ঘিরে। তাই সুন্দর পরিবেশনার সঙ্গে সঙ্গে খাবার টেবিল ও ঘরটিকেও দিতে হবে পরিপাট্য রূপ। লম্বাটে আকৃতির টেবিলের মাঝে সুদৃশ্য রানার বিছিয়ে দেয়া যায়। একই সঙ্গে রঙিন ম্যাট বিছিয়ে দেয়া যায় আবার রানারের ঠিক মাঝখানে রাখা যেতে পারে ছোট ফুলদানিতে সতেজ ফুল বা সুদৃশ্য রঙিন মোমসহ মোমদানি। উৎসবে তো শোকেস থেকে নামিয়েই উঠিয়ে রাখা হয় সুদৃশ্য ক্রোকারিজ। খাবার টেবিলের কাছাকাছি ছোট একটা টেবিল বা র‌্যাকে প্রয়োজনীয় প্লেট, গ্লাস, চামচ রাখা যায়। টেবিলের ঠিক ওপর রঙিন ল্যাম্পশেড খাবার ঘরটিতে মায়াবী পরিবেশ সৃষ্টি করবে।


শোয়ার ঘর : ঈদের দিন সকাল বেলাটিতেই বিছানাটি চাদর বা বেড কভারে ঢাকুন টান টান করে। সাইড টেবিলে ফুলদানিতে সাজিয়ে দেয়া যায় সুগন্ধি ফুল। বেড কভারের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে পর্দার রঙ ও কাপড় নির্বাচন করা উচিত। বেড সাইড টেবিল ল্যাম্প বা ঘরের কোণে কর্নার ল্যাম্পও ঘরটিকে মায়াময় করে তুলতে পারে। মেঝেতে কার্পেট ও দেয়ালে পেইন্টিং শোবার ঘরটি করে তুলবে আরো আকর্ষণীয় এবং মনমুগ্ধকর। শিশুদের শোবার ঘরটিকে সাজানো যায় কার্টুন বেড কভার, কুশন বা মজাদার পোস্টারে। দেয়ালে কার্টুন একে দেয়া যেতে পারে। ঈদ উপলক্ষে শিশুদের ঘরের দরজা বা কর্নার নিরাপদ দূরত্বে ইলেকট্রিক সুদৃশ্য রঙিন টুনি বাল্ব দিয়ে সাজানো যেতে পারে।
রান্নাঘর : ঈদের অন্যতম আকর্ষণ খাওয়া-দাওয়া। রান্নাঘরে যেন সবকিছু হাতের নাগালেই পাওয়া যায় এদিকে বিশেষ নজর রাখতে হবে। রান্নার প্রয়োজনীয় সব জিনিস জায়গামতো গুছিয়ে রাখতে হবে। এক কোণায় রাখা যেতে পারে ছোট টব বা ফুলদানি। গান শোনার ব্যবস্থা থাকলেও রান্না করা বেশ আনন্দময় হয়। কিচেন ডোরে ঝুলিয়ে দেয়া যেতে পারে টুংটাং চাইম। চাইমের মিঠে সুর রান্নার ক্লান্তি বা পরিশ্রান্তি দূর করে দেবে।
বারান্দা ও সিড়ি বা ছাদ : বারান্দা, সিঁড়ি কিংবা ঘরের দরজার পাশে জীবন্ত গাছ সাজিয়ে দেয়া যায় কিংবা ঝুলন্ত টবে পাটের শিকায় ঝুলিয়ে দেয়া যায় লতার গাছ। টবগুলোর পাশে মাটির শোপিস কিংবা মাটির ল্যাম্প বারান্দায় আলাদা সৌন্দর্য দেবে। এছাড়া বারান্দা বা ছাদের কোণায় মাটির বড় পাত্র বা টবে নানান শোপিস ও প্লান্টস দিয়ে সাজানো যায় ফেইরি গার্ডেন। বারান্দায় সুসজ্জিত জলদেশের কাব্যে অ্যাকুরিয়াম সাজিয়ে দেয়া যায়।

সব ঘরের ঝুল ঝেড়ে ফেলতে হবে। ফ্যান, টিউব লাইট সুন্দর করে মুছে ফেলতে হবে। বসার ঘরের সোফাগুলো পরিষ্কার করে রাখতে হবে। যেসব সোফার কভার ধোয়া যায় সেগুলো ধুয়ে ফেলতে হবে। আর যেসব ধোয়া সম্ভব নয় সেসব ফার্নিচার স্প্রে দিয়ে মুছে ফেলতে হবে।  সপ্তাহখানেক অগেই বিছানার চাদর, কুশন কভার, বালিশের কভার, টেবিল ক্লথ ধুয়ে ইস্ত্রি করে রাখতে হবে। টাইলসের মেঝে পানিতে স্যাভলন বা ডিটারজেন্ট মিশিয়ে কিংবা লিকুইড ক্লিনার দিয়ে মুছে ফেলতে হবে। ঘরের আনাচে-কানাচে ও ছাদে ঝুল ঝেড়ে পরিষ্কার করে ফেলতে হবে। ফ্যান, লাইট, কিচেন ক্যাবিনেট, জানালা-বারান্দার গ্রিল, দরজার কারুকাজ, সিঁড়ি ইত্যাদি আগেই পরিষ্কার করে রাখতে হবে। ঈদের দু’তিন দিন আগে বাড়ির প্রতিটি টয়লেটের মেঝে ভালো করে ঘষে রাখতে হবে। টয়লেটে টয়লেট পেপার, লিকুইড সোপ- এসব প্রয়োজনীয় জিনিস গুছিয়ে রাখতে হবে। তাজা ফুল বা ইনডোর প্লান্ট টয়লেটের বেসিন কিংবা শেলফে রেখে দেয়া যেতে পারে। বারান্দার টবগুলো ধুয়ে-মুছে পারলে রঙ করিয়ে নিলে ভালো হয়। ঈদের আগের দিনই গ্লাস ও প্লেটগুলো নামিয়ে ধুয়ে-মুছে রেখে দিলে ঈদের দিন তাড়াহুড়া থাকবে না। টিশ্যু বক্স, এয়ার ফ্রেশনার, হ্যান্ড ওয়াশ, জরুরি ওষুধ আগেই মজুদ করে রাখা উচিত। এতে কেউ হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে ঈদের ছুটিতে আশপাশের মেডিসিন শপ বন্ধ থাকলেও কোনো সমস্যায় পড়তে হবে না।


বাড়ির অন্দর গৃহকর্ত্রীর রুচিশীলতার পরিচয় দেয়। তাই এর প্রায় পুরো কৃতিত্বই দিয়ে দেয়া যেতে পারে গৃহকর্ত্রীকেই।
যাহোক, উৎসবের আনন্দে নান্দনিক গৃহসজ্জা এবং মুখরোচক খানা-খাদ্যের সমাহারে ভরে উঠুক প্রতিটি অন্তর ও হৃদয়। সবাই যে যেখানে আছেন- আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব, পরিবার-পরিজন নিয়ে কাটাবেন উৎসবের এদিনটি আনন্দ-উচ্ছলতায়। নিরাপদে ও সুস্থ থাকুন সবাই। সবার প্রতি রইলো ঈদের অনাবিল শুভেচ্ছা। 

ঈদ উৎসব ও নন্দনতত্ত্ব

ড. মো. আমিরুল মোমেনীন চৌধুরী




ঈদ ‘আওদ’ শব্দ থেকে গ্রহণ করা হয়েছে। আওদ-এর আভিধানিক অর্থ পুনরাগমন বা বার বার ফিরে আসা। অষ্টম শতকের প্রথম দিকে বাংলাদেশে মুসলমানদের আগমন ঘটে। ওই সময় সুফি, দরবেশ, তুর্কি- আরব বণিকদের মাধ্যমে বাংলাদেশে রোজা, নামাজ ও ঈদের সূত্রপাত বলে মনে করা হয়। অবশ্য তা ছিল বহিরাগত ধর্ম শাসক, ব্যবসায়ী ও ভ্রমণকারীদের ধর্মীয় উৎসব। বাংলাদেশের ধর্ম সামাজিক পার্বণ নয়। বাংলাদেশে রোজা পালনের প্রথম ঐতিহাসিক বিবরণ পাওয়া যায় ‘তাসকিরাতুল সোলহা’ গ্রন্থে। এই গ্রন্থের বিবরণ থেকে জানা গেছে, আরব দেশের শেখউল খিদা-র ৩৪১ সন মুতাবিক অর্থাৎ ৯৪১ খ্রিস্টাব্দে ঢাকায় আগমন। ঢাকায় ইসলাম ধর্ম প্রবেশের আগে শাহ সুলতান রুমি নেত্রকোনা ও বাবা আদম শহীদ বিক্রমপুরের রামপালে ইসলাম প্রচার শুরু করেন। শেখউল খিদা চন্দ্র বংশীয় রাজা শ্রী চন্দের শাসনকালে (৯০৫- ৯৫৫ খ্রিস্টাব্দ) সবুজ বদ্বীপে আগমন করেন বলে অনুমান করা হয়। তাদের প্রভাবেই বাংলাদেশে রোজা, নামাজ ও ঈদ প্রচলিত হয়েছিল- এটাও প্রমাণ সাপেক্ষ নয়। কারণ ‘নামাজ’, ‘রোজা’, ও ‘খোদা হাফেজ’ শব্দের ব্যাপক প্রচলনে বোঝা যায়, অ্যারাবিয়ানরা নন, ইরানিয়ান সুফি-দরবেশদের দ্বারাই বাংলাদেশে ইসলাম প্রচার শুরু হয়েছে। উপরোক্ত তিনটি শব্দই আরবি নয়, ফার্সি। ১৬৪০ খ্রিস্টাব্দে বাংলার সুবেদার শাহ সুজার নির্দেশে তার প্রধান আমাত্য মীর আবুল কাসেম একটি ঈদগাহ (২৪৫-১৩৭ ফিট আয়তন) নির্মাণ করেন। ভূমি থেকে ১২ ফিট উঁচু ওই ঈদগাহের চতুর্দিকে ১৬ ফিট উঁচু সুদৃশ্য প্রাচীর ঘেরা। ঈদগাহে মেহরাব ও মিনার নির্মিত হয়েছিল। মোগল আমলে রাজদরবার, আদালত, সেনা ছাউনি ও বাজারে কেন্দ্রে অবস্থান ছিল ওই ঈদগাহের। সেখানে শুধু সুবেদার, নায়েবে নাজিম, অভিজাত মুসলমান কর্মকর্তা ও তাদের স্বজনরাই এখানে ঈদের নামাজ পড়তে পারতেন। পরে ঈদগাহ ময়দান জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। ওই ঈদগাহ ময়দানের পাশে ঈদের সময় মেলা বসতো। মোগল আমলে ঈদের দিন জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠান ও আনন্দ উৎসব হতো। এর প্রমাণ পাওয়া যায় বাংলাদেশে বিভিন্ন স্থানে গণমুখী শাহী ঈদগাহের উপস্থিতি দেখে। সুফি-সাধকদের ভূমিকাও ছিল এক্ষেত্রে অনন্য এবং অধিকতর জনসচেতন। উনিশ শতকের শেষ দিকে ঈদের আনুষঙ্গিক আনন্দের সঙ্গে যুক্ত হয় একটি নতুন উপাদান ‘লোকজ মেলা’। ওই মেলায় শোলার তৈরি পাখি, ফুল, কুমির, হাতি, ঘোড়া, নকশা তালপাখা, চিত্রিত শখের হাঁড়ি ছাড়াও অনেক লোকজ খেলনা পাওয়া যায়। আর দই, মিষ্টি ও জিলাপির পসরার কোনো তুলনা নেই। ওই ধারা এখনো বাংলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিরাজমান। ঈদ যে বাংলাদেশের মুসলমানদের মহোৎসব এর বড় প্রমাণ উৎসবমুখর ঈদের বাজার। তা নি¤œবিত্ত থেকে উচ্চবিত্তের এক যোগসূত্র। এর সঙ্গে আবার যুক্ত কোরবানির মহোৎসব। ‘কোরবানি’ শব্দের অর্থ অতীব নিকটবর্তী হওয়া। কোরবানির পশুপালনের সঙ্গে যুক্ত নি¤œবিত্তের কোটি কোটি নারী-পুরুষ। বলা চলে, ঈদের প্রস্তুতি সারা বছর ধরে এবং সামাজিক ও আর্থিক উন্নয়নও ঈদ উৎসবের বাইরে নয়।

 


পৃথিবীর ইতিহাসে বিভিন্ন ধর্মের যে উৎসব উদযাপিত হয়, ঈদ উৎসব ওই তুলনায় কনিষ্ঠতম। কিন্তু আয়োজনের ব্যাপকতায় সবচেয়ে বড়। সমকাল থেকে ১৩৮৮ সৌর বছর আগে এই উৎযাপন শুরু হয়। ইসলামের বার্তাবাহক নবী হজরত মুহম্মদ (সা.)-এর মক্কা থেকে মদিনায় হিজরতের অব্যহতি পর প্রথম ঈদুল ফিতর উৎসব পালন শুরু হয়। অ্যারাবিয়ানদের ইহুদি ধ্যান-ধারণা ও জাহেলি প্রথার পরিবর্তে দুই ঈদ ছিল আল্লাহর রাসুলের পক্ষ থেকে মুসলমানদের জন্য ঘোষিত উপহার। ইসলামি আদর্শে উজ্জীবিত আরববাসী পালন শুরু করে ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা। এর আগে আরবে পৌত্তলিক ভাবনায় অগ্নিপূজকদের ‘নওরোজ’ ও মূর্তিবাদীদের ‘মিহিরজান’ নামে দুটি শ্রেণিবৈষম্য, অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ উৎসব পালিত হতো। এর পরিবর্তে দুই উৎসব বয়ে আনে আনন্দবার্তা। শ্রেণিবৈষম্যহীন, পবিত্র আর ধর্মানুভূতির মেলবন্ধনের মহোৎসব। ঈদুল ফিতর শব্দের অর্থ রোজা ভাঙার দিবস। ঈদুল ফিতরের আগের রাতকে ইসলামি পরিভাষায় বলা হয় ‘লাইলাতুল জায়জা’। এর অর্থ পুরস্কার রজনী। ঈদুল আজহাকে ধর্মীয় পরিভাষায় বলা হয় ‘ইয়ামুজ জায়েজ’। এর অর্থ পুরস্কারের দিবস। এছাড়া আছে আলবেনিয়ান, আরবি, বাংলা, চায়নিজ, গ্রিক, হিন্দি, হিব্রু, সিলেটি নাগরী ও তামিল ভাষায় দুই ঈদের আলাদা নাম প্রচলিত। দেড় হাজার বছরেরও বেশি ঈদ উৎসব পালিত হচ্ছে। ক্যামেরাবিহীন যুগে চিত্রশিল্পীরা ধরে রেখেছেন ঈদ উৎসবের ছবি। অবশ্য ইসলামিক অনুশাসনে ছবি আঁকা নিয়ে বিরোধ-বিতর্ক রয়েছে। ঈদ উৎসবের যতো চিত্রশিল্প রয়েছে এর মধ্যে শোভাযাত্রার ছবি বেশি। বর্ণাঢ্য সাজে সজ্জিত মানুষ দলবেঁধে ঈদগাহ ময়দানের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। শোভাযাত্রায় হাতি, ঘোড়া, রাজকীয় পালকি ও নকশাদার ছাতার ব্যবহার রয়েছে। কোনো কোনো ছবিতে আতশবাজি পোড়াচ্ছেন নারীরা। বোরাকের ছবি এঁকেছেন শিল্পীরা। মাথায় চাঁদ-তারাখচিত মুকুট শোভিত বোরাকের বোরাক, ছবির ভেতর ফার্সি ও আরবি ভাষায় ক্যালিগ্রাফি। মোগল আমলের ছবিতে স¤্রাটকে প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। সব ছবির ভেতর ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যতা ও ঠা-া রঙ ব্যবহারের চাতুর্যতা প্রশংসনীয়। বিশ্বশিল্পে ইসলামিক চিত্রকলার একটি বিশাল স্থান রয়েছে, বিশেষ করে পার্শিয়ান ও মোগল মিনিয়েচার চিত্রশিল্প। ওই চিত্রশিল্প পর্যবেক্ষণে এর ইতিহাস জানা জরুরি।


শিল্প প্রতিভার দ্বারাই নির্মাণ করা সম্ভব। সাধারণভাবে তাকেই শিল্প বলা হয় যার বিকাশ অথবা প্রকাশ মানুষের বুদ্ধিবৃত্তির দ্বারা চালিত নয়, বরং একটি সুকুমার বোধ ও কল্পনা প্রতিভার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। প্রাচীনকাল থেকে আধুনিককাল পর্যন্ত শিল্পকে নানানভাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। অস্কার ওয়াইল্ড যেমন ‘আর্ট ফর আর্ট সেক’ তত্ত্বে বিশ্বাসী ছিলেন তেমনি লিও টলস্টয় অথবা বার্নাড শ’ শিল্পের সামাজিক মূল্যমানকে শিল্পের উদ্দেশ্য মনে করেছেন। অস্কার ওয়াইল্ড বলেছেন, ‘সুন্দর সৃষ্টিই হচ্ছে শিল্পের একমাত্র লক্ষ্য- ‘দ্য আর্টিস্ট ইজ দ্য ক্রিয়েটর অ্যা বিউটিফুল থিংক’। শিল্পে নীতির প্রশ্নকে তিনি স¤পূর্ণ উপেক্ষা করেছেন- ‘দেয়ার ইজ নো সাচ থিংক অ্যাজ অ্যা মোরাল অর ইমমোরাল বুক’। লিও টলস্টয় তার ‘হোয়াট ইজ আর্ট’ গ্রন্থে লিখেছেন, শিল্পের মধ্যে প্রকাশিত হবে সেসব ‘ফিলিং ইনডিস পেনসিবল ফর দ্য লাইফ অ্যান্ড প্রগ্রেস টুওয়ার্ডস ওয়েলবিং অ্যা ইনডিভিজুয়ালস অ্যান্ড অ্যা হিউম্যানেটি’। ফ্রেজার তার ‘দ্য গোল্ডেন বাউস’ গ্রন্থে অকাল্ট ম্যাজিক ইত্যাদি বিষয়কে প্রাচীন শিল্পের উৎসমুখ বলে উল্লেখ করেছেন। শিল্পকলায় অনুকরণ অর্থাৎ ইমিটেশনের প্রসঙ্গ সুপ্রাচীন। গ্রিক শব্দ ‘মাইমেসিস’ ইমিটেশন বা অনুকরণের অনুকরণ। প্লেটোর অনুকরণতত্ত্বে শিল্প হলো ‘আর্ট ইজ ডাউলি রিমোভড ফ্রম রিয়ালিটি’ অর্থাৎ ঈশ্বর তার পরিকল্পনা অনুযায়ী নিজস্ব প্রতিরূপ হিসেবে যে বিশ্বসংসার তৈরি করেছেন এরই দ্বিতীয় প্রতিরূপ হচ্ছে শিল্পকলা। শিল্পের প্রেরণা হিসেবে তার ধারণা ছিল শিল্পী শিল্পকর্ম সৃষ্টির জন্য ঐশ্বরিক অনুভূতির ওপর নির্ভরশীল। প্লেটো শিল্পীর অন্তরে নিজস্ব ‘অ্যাসেনসিয়াল ক্রিয়েটিভ স্প্রিট’কে অবিশ্বাস করতেন। ঐশ্বরিক প্রেরণাজাত কোনো বিশেষ তাগিদ শিল্পীর ওপর ভর করলেই শিল্প সৃষ্টি সম্ভব।


নন্দনতত্ত্ব ও শিল্পের নির্মিতিকে কখনোই বিচ্ছিন্নভাবে দেখা যায়নি। এটি ভারতীয় সমাজের সামাজিক ও অর্থনৈতিক কাঠামোর অপরিহার্য অংশ। সমাজের একদিকের পরিবর্তন অনিবার্যভাবে অপরদিককে প্রভাবিত করে। এটিই হচ্ছে ভারতীয় সমাজ, শিল্প ও শিল্প-কারখানার আন্তঃসম্পর্কের প্রকৃত ‘গতি বিজ্ঞান’। উপনিষদের সৃষ্টি ও জীবন সংক্রান্ত ‘মেটাফিজিকাল’ বা অধিবিদ্যামূলক দর্শন ও ঈশ্বর ধারণা কয়েক হাজার বছর ধরে এই উপমহাদেশে দিয়েছিল এক সাংস্কৃতিক যোগসূত্র। তা প্রতিফলিত হয়েছে সারা ভারতবর্ষের লোকশিল্প, লোকসাহিত্য, সঙ্গীত ও নৃত্যবৈচিত্র্যের মধ্যে একই সুরের খেলা, বহুর মধ্যে একই সুরের স্পন্দন। প্রায় ৫ হাজার বছর আগে আর্যদের আগমন এবং এই উপমহাদেশে আর্য ও দ্রাবিড়দের সহাবস্থানের দ্যোতক ভারতবর্ষের বেদ উপনিষদের স্বীকৃতির পর বহু জনগোষ্ঠী উপমহাদেশে এসেছে। ভারতবর্ষের মহামানবের মূল স্রোতে মিশে গেছে অনেক সময় নিজ নিজ বৈশিষ্ট্য রেখেও।


খ্রিস্টীয় দশম শতাব্দীতে মুসলমানরা এলো এক অতি উচ্চাঙ্গের সংস্কৃতি ও ধর্মবোধ সঙ্গে নিয়ে। তাদের আগমনের পূর্ব পর্যন্ত ভারতবর্ষে কোনো গ-িবদ্ধ ধর্মমত ছিল না। হিন্দু জনসমাজের মধ্যে ছিল বেদ ও উপনিষদের দর্শন। ওই দর্শনের বিস্তৃত অঙ্গনের মধ্যে বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন সময়ে নানান বিশ্বাস বা অবিশ্বাস ও আচার-অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ধর্মাচারণ করতো। এই প্রথম এক জনগোষ্ঠী ভারতবর্ষে বাস স্থাপন করেও উপমহাদেশের মূল স্রোতের বাইরে নিজেদের বিশিষ্ট সংস্কৃতি ও ধর্ম নিয়ে স্বতন্ত্র পরিচয় স্থাপন করে। হিন্দু সমাজেও এই সময় ধীরে ধীরে স্বতন্ত্র বোধের উদয় হয়। বহু হিন্দু ধর্মান্তরিত হন। পশ্চিম এশিয়ার ইসলামিক দেশগুলো থেকেও ভারতবর্ষে এসে বসবাস স্থাপন করেছিল বহু জ্ঞানী-গুণী ব্যক্তি-দার্শনিক, কবি, ঐতিহাসিক ছাড়াও স্থপতি, সঙ্গীতজ্ঞ, চিত্রশিল্পী ও নানান ধরনের পারদর্শী কারুশিল্পী। ধীরে ধীরে ভারতবর্ষে গড়ে ওঠে এক বর্ণাঢ্য সংস্কৃতি। ভারতীয় মুসলিমের সংস্কৃতি এবং পশ্চিম এশিয়া ও ভারতীয় শিল্প-সংস্কৃতির মিলনে গড়ে ওঠে ওই সংস্কৃতি। দুই সামন্ততান্ত্রিক দেশের নাগরিক সংস্কৃতি মুসলিম ও মুসলিম-উত্তর দরবারি শিল্প। আদিম সমাজ থেকে যখন মানুষের সামন্ততান্ত্রিক সমাজে উত্তরণ ঘটে তখন ওই সামন্ততান্ত্রিক সমাজে গ্রামীণ লোকসংস্কৃতির পাশাপাশি গড়ে ওঠে এক নাগরিক সংস্কৃতি, নতুন সমাজের নগর ও জনপদগুলো কেন্দ্র করে। ভারতবর্ষের লোকসমাজ আদিবাসী সংস্কৃতি ও মুসলিম সমাজের দরবারি সমাজ বাদ দিলে বৃহত্তর হিন্দু সমাজ জাতি-বর্ণে বিভক্ত হয়। ওই সমাজে লোকসংস্কৃতির নানান অভিব্যক্তি, বিশেষ করে লোকশিল্পের উপজাত বস্তু ৯টি শিল্পভিত্তিক বর্ণের অবদান। বৃত্তিভিত্তিক বর্ণ-বিভাগের ফলে প্রাচীন ভারতের সামন্ততান্ত্রিক সমাজের নাগরিক সংস্কৃতি
প্রয়োজনীয় সর্ববস্তু সম্ভারের জন্য বংশানুক্রমিক ভাবধারা ও অসাধারণ দক্ষতার


অধিকারী বর্ণাশ্রয়ী শিল্পীদের ওপর নির্ভরশীল ছিল। মধ্যযুগে ইসলামি শিল্প-সংস্কৃতি- যাকে দরবারি শিল্প বলা হয় এর সংস্পর্শে এলো হিন্দু নাগরিক সংস্কৃতির শিল্প। ওই মিলনের ফসল হিসেবে ভারতবর্ষের নাগরিক শিল্প এমন এক নান্দনিক গুণ অর্জনে সমর্থ হয়েছিল যে, পৃথিবীজুড়ে এর খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে ওই যুগে। মোগল শাসন আমলে ভারত উপমহাদেশে মুসলমানদের যে স্থাপত্য ধারা প্রবর্তিত হয় তা দেখা যায় উপমহাদেশের বিভিন্ন স্থানে প্রাসাদ, মসজিদ, দুর্গ, দরবার কক্ষ, স্মৃতিসৌধ্য, মিনার প্রভৃতির বিচিত্র বর্ণ ও অলঙ্করণের মাধ্যমে। ৭১২ খ্রিস্টাব্দে মুহাম্মদ বিন কাসিমের সিন্ধু বিজয়ের মধ্য দিয়ে এই উপমহাদেশে মুসলমানদের আগমন সভ্যতার ইতিহাসে এক নতুন অধ্যায়ের দ্বার উন্মোচন করে। এতে দেশের রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক ব্যবস্থার ক্ষেত্রে তেমন উল্লেখযোগ্য প্রভাব বিস্তার করতে না পারলেও মুসলমান এবং স্থানীয় অধিবাসীদের মধ্যে ভাব ও সংস্কৃতির আদান-প্রদান করতে পূর্ণমাত্রায় সক্ষম হয়েছিল। সিন্ধুর বিশেষ এলাকা ‘মানসুরা’য় (বর্তমানে ধ্বংস্তূপে পরিণত) নির্মিত ক্ষুদ্র পরিসরের মসজিদ ছাড়া ওই সময়ের স্থাপত্যের তেমন কোনো উল্লেখযোগ্য স্থাপত্য নিদর্শন পাওয়া যায় না। তবে মুহাম্মদ বিন কাসিমের সিন্ধু বিজয়-পরবর্তী মুসলিম বিজয় এবং স্থায়ীভাবে তাদের সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার পথ অনেকটা সহজ করে দিয়েছিল। একাদশ শতাব্দীতে গজনির সুলতান মাহমুদ একাধিকবার ভারতবর্ষে প্রবেশ করেন। কিন্তু যে কোনো প্রাসঙ্গিক কারণেই হোক, তিনি স্থায়ীভাবে এখানে রাজত্ব করেননি এবং তেমন কোনো উল্লেখযোগ্য স্থাপত্য নির্মাণে ব্রতী হননি। অবশ্য তিনি গজনিতে অনেক সুরম্য প্রাসাদ ও ধর্মীয় ইমারত ও বিজয়স্তম্ভ নির্মাণ করেছেন। গজনির স্থাপত্যরীতি
পরবর্তীকালে ভারতীয় মুসলিম স্থাপত্যে বহুলাংশে অনুসৃত হয়েছে। এর সাক্ষ্য বহন করে দিল্লির কুতুব মিনারের নির্মাণ কৌশল।


ভারতীয় উপমহাদেশের মুসলিম স্থাপত্যকে সাধারণত  প্রধান তিনটি শৈলীতে ভাগ করা যায়। তা হলো দিল্লির সুলতানি স্থাপত্যরীতি, মোগল রাজকীয় শৈলী ও প্রাদেশিক বা আঞ্চলিক স্থাপত্যশৈলী। শৈলীগত পরিবর্তন ঘটলেও মোগল স্থাপত্য অলঙ্করণে ইসলামি ধারাবিবর্জিত কোনো বিষয় রচিত হয়নি। ইসলামি শিল্পকলার অন্যতম প্রধান গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য হলো অলঙ্করণ। ইসলামি শিল্পকলাকে মূর্তিবিবর্জিত বা আইকনিক শিল্পকলা বলা হয়েছে। অপরাপর শিল্পকলার মতো ইসলাম কেন্দ্র করে কোনো ‘আইকনিক’ বা মূর্তি শিল্প গড়ে ওঠেনি। ইসলামি শিল্পকলায় অলঙ্করণের ব্যবহার দু’দিক থেকে বিচার করা যায়- উপকরণভিত্তিক ও মোটিভভিত্তিক। অলঙ্কণের প্রকারভেদ নির্ভর করে উপকরণের ওপর। উমাইয়া যুগে পাথর ও মার্বেলের সর্বজনীন প্রয়োগের ফলে যে ধরনের অলঙ্করণের উদ্ভব হয়, আব্বাসীয় যুগে ইটের ব্যবহারে তা দেখা যায় না। এ কারণে পাথরের ওপর যে ধরনের নকশা দেখা যায় তা সাধারণত খোদাই বা স্টোন কার্ভিং ‘ফুসাইফিসা’ বা মোজাইক, ওপুস সেকটাইল বা সাদা পাথর কেটে রঙিন পাথর বসিয়ে নকশা করা। পাথরের ওপর বিভিন্ন আকারের নুড়ি, কাচ, মার্বেল প্রভৃতি বসিয়ে যে মোটিভ সৃষ্টি করা হয় তাকে মোজাইক বলে। আব্বাসীয় যুগে মোজাইকের ব্যবহার হ্রাস পেলেও সামারার ভগ্নপ্রাপ্ত বালকুয়ারা প্রাসাদ থেকে প্রচুর মোজাইক উদ্ধার করা হয়। ওপুস সেকটাইল-এর প্রয়োগ ভারত উপমহাদেশে মোগল আমলে, বিশেষ করে সম্রাট আকবরের স্থাপত্যকীর্তিতে (ফতেপুর সিক্রির জামে মসজিদ, সেকেন্দ্রায় আকবরের সমাধি, আগ্রায় ইতিমদল্লার সমাধি) দেখা যায়। এছাড়া মোগল স্থাপত্যগাত্রে ফ্রেস্কো, স্টাকো, টেরাকোটা, রঞ্জিতটালী ও পিয়েত্রা দুরার বহুল ব্যবহার করা হয়েছে। আর শিল্পের ইতিহাস বদলে দিয়েছে আবয়বিক

বিমূর্তলোকের বাসিন্দা : রশিদ আমিন

 

 

ভাবনার বিমূর্তরূপ যাঁর ক্যানভাসে মূর্ত হয়ে ওঠে তিনি রশিদ আমিন।
নিভৃতচারী এই শিল্পী মননে বিমূর্তলোকের বাসিন্দা। ধ্যানস্থ তাঁর আপন কাজে, তবে নির্লিপ্ত নন পারিপার্শ্বিক টানাপড়েনে। এই শিল্পীর মুখোমুখি হয়েছিলেন শাকিল সারোয়ার

 

আপনার শৈশব-কৈশোর কোথায় কেটেছে?
আমার শৈশব কেটেছে টাঙ্গাইলে। আমার শৈশবের টাঙ্গাইল ছিল একটি ছোট্ট মায়াবী শহর। ওই শহরেই আমার বেড়ে ওঠা। একটা চমৎকার সাংস্কৃতিক আবহ ছিল এই শহরে। নাটক, সঙ্গীত, নৃত্যানুষ্ঠানÑ এসব আয়োজনে মুখরিত থাকতো ওই শহর। ছিল অনেক শিশু সংগঠন। এ রকমই একটি শিশু সংগঠন ছিল ‘কচিকাঁচার মেলা’। এখানেই আমার ছবি আঁকার শুরু আমার শিল্পী সত্তার সূচনা।

আপনার পরিবার সম্পর্কে কিছু বলুন
আমার বাবা টাঙ্গাইলে পোস্ট মাস্টার ছিলেন। ৯ ভাইবোন আমরা। বড় একটি পরিবার। আমরা চার ভাই ও পাঁচ বোন। ভাইয়েরা সবাই প্রতিষ্ঠিত। বড় ভাই নাট্যজন মামুনুর রশীদ। মেজভাই সাংবাদিক। বর্তমানে কানাডা প্রবাসী। সেজভাই ডাক্তার। তিনি বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ডা. কামরুল হাসান খান। বোনরা সবাই স্নাতক, কেউ কেউ স্নাতকোত্তর পাস এবং চাকরি করছে। বোনরা সাংস্কৃতিক জগতে আসতে পারেননি। কারণ বাবা কিছুটা রক্ষণশীল ছিলেন।

কবে থেকে ছবি আঁকার তাগিদ অনুভব করলেন এবং ছবি আঁকাই বা কেন বেছে নিলেন?
ছবি আঁকায় আমার পরিবারে কোনো পূর্বসূরি ছিলেন না। বলা যেতে পারে আমিই এক্ষেত্রে পথিকৃৎ। তবে আমার বড় ভাই নাটক করতেন। সেক্ষেত্রে কিছুটা প্রেরণা ছিল। আমি একটি শিশু সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম যা আগেই বলেছি। সেখানেই আমার ছবি আঁকার হাতেখড়ি। আমি যখন এসএসসি পরীক্ষার্থী তখন সিদ্ধান্ত নিয়ে নিলাম আর্ট কলেজে ভর্তি হবো। তখন থেকেই আমার পেশাদার শিল্প শিক্ষার শুরু। আমার ভাইয়েরা সবাই আমাকে চারুকলায় ভর্তি হওয়ার ব্যাপারে খুব উৎসাহ দিয়েছিলেন। ছবি আঁকা বেছে নেয়ার বড় কারণ হচ্ছে, এটা এমন একটা বর্ণময় ভুবন, এই ভুবনে যে প্রবেশ করেছে তার এখান থেকে নিস্তার নেই। আমিও এই ভুবনের সঙ্গে জড়িয়ে গেলাম। তবে আরো কিছু কারণ ছিল। তা হলো, ছবির মধ্য দিয়ে নিজেকে যতো সহজে প্রকাশ করা যায়, অন্য মাধ্যমে তা সম্ভব নয়। সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম স্বাধীন পেশাদার শিল্পী হবো। তা আর সম্ভব হয়নি। শিক্ষকতায় ঢুকতে হলো। তবে এটিও আমার জন্য একটি আনন্দদায়ক অধ্যায়। আমার একটি বিশাল ছাত্রভুবন তৈরি হয়েছে। তাদের সঙ্গে শিল্প পাঠ দেয়া ছাড়াও নানান সুখ-দুঃখে জড়িয়ে গিয়েছি। তাদের কাছ থেকেও অনেক শেখার আছে।

পেইন্টিংয়ের কোন ধারাটি আপনাকে বেশি টানে?
আমি মনে করি, পেইন্টিং হচ্ছে খুব একটা ইচ্ছা-স্বাধীনের ভুবন। এর মধ্য দিয়ে আমার অন্তরের একেবারের ভেতরের নির্যাসটা বের করে নিয়ে আসতে পারি। তাই সব সময় বিমূর্তধারাটিই বেশি পছন্দ করি। অবশ্য বিমূর্তধারার শিল্পী হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করা খুব কঠিন। কারণ মানুষ পেইন্টিংয়ের মধ্যে সব সময় একটি আকার অথবা অবয়বই খোঁজে। যখনই দেখে নিরাবয়ব অথবা নিরাকার তখনই মুখ ফিরিয়ে নেয়। এটি একটি সংগ্রাম। মানুষের দৃষ্টি নিরাবয়বের মধ্যে টেনে নিয়ে আসা। আমার গুরু মোহাম্মদ কিবরিয়া তা পেরেছিলেন। বিমূর্তধারার সঙ্গে এক ধরনের আধ্যাত্ম চেতনার সংমিশ্রণ ঘটাতে হয়। অনেকেই ভুল বোঝেন। এটা ঠিক তথাকথিত ধর্মীয় আধ্যাত্ম নয়। এটি প্রকৃতি, বিশ্বব্রহ্মা- ও মহাশূন্যের সঙ্গে শিল্পীর এক নিবিড় খেলা।

শিল্পী হিসেবে বলুন, নিজের শিল্পসত্তা প্রকাশে আপনি কতোটুকু স্বাধীন?
আমি এটুকু নিশ্চিত করে বলতে পারি, আমার শিল্পসত্তা প্রকাশের ব্যাপারে পুরোপুরি স্বাধীন ও আপসহীন। নিজস্ব শিল্প-ভাবনা ও শিল্প-প্রকাশ টিকিয়ে রাখার জন্য সংগ্রাম করেছি। আজ পর্যন্তও তা করছি। অন্যের রুচি অনুযায়ী ছবি আঁকিনি। অনবরত নিজেকেই প্রকাশ করতে চেয়েছি।

স্বদেশ আপনাকে কতোটুকু টানে এবং ওই টান আপনার কাজে কতোটকু প্রভাব ফেলেছে?
স্বদেশ আমার এক গভীর প্রেরণা। যা-ই আঁকি না কেন, সেখানে স্বদেশ থাকে, থাকে স্বদেশের রঙ। সুযোগ পেলেই ভ্রমণ করি। এতো সুন্দর আমাদের দেশ! বর্ষা আমার প্রিয় ঋতু। বর্ষায় ‘বর্ষামঙ্গল’ শিরোনামে ছবি আঁকি এবং গত দুই বছরে অনেক ছবি জমেছে। ভাবছি ভবিষ্যতে একটা প্রদর্শনী করবো।

নিজের কাজে আপনার তুষ্টি কতোটুকু?
আমার কাজে মোটেই তুষ্ট নই। অনবরত একটি অতৃপ্তি কাজ করে। অনেক ছবি আছে বছরের পর বছর ফেলে রেখেছি, শেষ করতে পারি না। দেশে কিংবা বিদেশে কার কার কাজ আপনাকে মুগ্ধ করে, ভাবায় এবং প্রাণিত করে? দেশে মোহাম্মদ কিবরিয়া ও মনিরুল ইসলাম আমার প্রিয়। আসলে কিবরিয়া স্যার আমার সরাসরি শিক্ষক ছিলেন। খুব কাছ থেকে দেখেছি, একজন শিল্পী কীভাবে শিল্পের সাধক হয়ে ওঠেন। আমাকে সব সময় তাকে সন্ত শিল্পী হিসেবেই মনে হয়েছে। বিদেশে ক্যান্দেনেস্কি, মার্ক রথকো, পিকাসো, তাপিস আমার প্রিয়। তাদের কাজের ভেতর রঙ ও রেখার সঙ্গে দারুণ এক আধ্যাত্ম বোধের সংমিশ্রণ ঘটেছিল। এটিই আমাকে খুব টানে।

 

_______________________

লেখাঃ শাকিল সারোয়ার

ছবিঃ শোভন আচার্য্য অম্বু

ভাস্কর্য

একজন হামিদুজ্জামান

 

 

‘আমি যে গ্রামে বেড়ে উঠেছিলাম সেখানকার প্রায় সবাই ছিলেন শিক্ষিত। একই সঙ্গে দেশ-বিদেশের খবরাখবরও রাখতেন তারা। দৈনিক পত্রিকা থেকে শুরু করে বিভিন্ন ম্যাগাজিন আসতো আমাদের গ্রামে। ভারতীয় ম্যাগাজিনগুলোয় আঁকা থাকতো অনেক ছবি। ভারতীয় শিল্পীদের আঁকা ছবির সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয় হয় এসব ম্যাগাজিনেই। আমি খুব অভিভূত হতাম, মাঝে মধ্যে আঁকার চেষ্টাও করতাম। তখন থেকেই আমার শিল্পের পথে চলার শুরু। পড়ার ফাঁকে ফাঁকে স্কুলের খাতাতেও চলতো এই চেষ্টা’-
কথাগুলো বলছিলেন বিখ্যাত ভাস্কর হামিদুজ্জামান। যার কাছে পরীক্ষার খাতাও কখনো কখনো হয়ে উঠতো ক্যানভাস।
বাবা ধার্মিক মানুষ হলেও রীতিমতো উৎসাহ দিতেন তার কর্মকা-ে। একদিন বাবার অনুরোধে পাড়ার মসজিদের ছবি আঁকলেন তিনি। অভিভূত বাবা ওই ছবি মসজিদের ইমামকে উপহার হিসেবে দিলেন। তিনিও ভারী খুশি হলেন। এরপর তার দাদার মুখাবয়বের সঙ্গে মিলে যায় এমন একটি স্কেচ এঁকে তাক লাগিয়ে দেন সবাইকে। এই ছোট ছোট বিষয়গুলো হামিদুজ্জামানের কাজে অনুপ্রেরণা যোগাতো। বাবার পাশাপাশি আশপাশের অন্য অনেকের উৎসাহে অনুপ্রাণিত হন তিনি।


এ পর্যন্ত হামিদুজ্জামান যতো ছবি এঁকেছেন এর সবই নিজের ভেতর থেকেই এসেছে। তার প্রাতিষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয় আর্ট কলেজে ভর্তি হওয়ার পর (বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ)। তার কাছে প্রশ্ন রাখা হয়েছিল, আর্ট কলেজে ভর্তি হওয়ার বিষয়টি কি সহজ ছিল ওই সময়? তিনি উত্তর দিলেন, ‘না, তেমন সহজ ছিল না। ১৯৬২ সালে ম্যাট্রিক পাস করি। এরপর ইন্টারমিডিয়েট ভর্তি হয়েছিলাম ভৈরব কলেজে। আমার সাবজেক্ট ছিল সায়েন্স। দুই মাস ক্লাস করার পর ওই সাবজেক্ট আমার একদম ভালো লাগলো না। কিছুতেই ওইসব ফিজিক্স-কেমিস্ট্রিতে আমার মন বসছিল না। বাড়িতে এসে বাবাকে বললাম, ভালো লাগছে না একদম। আমি পড়তে পারছি না। এর মধ্যে অবশ্য জেনে গিয়েছি ঢাকার আর্ট কলেজের কথা। আর ওই সময়ের মধ্যে আঁকার হাতটা একটু ভালো হয়ে উঠেছিল। তাই বাবার কাছে এসে আর্ট কলেজে ভর্তি হওয়ার জন্য গো ধরলাম। আমাদের ওখানে যে পোস্ট অফিস ছিল সেখানে ভালো এক পোস্ট মাস্টার ছিলেন। তার সঙ্গে আমার বাবার খুব ভালো সখ্য ছিল। গল্পে গল্পে বাবা যখন ওনাকে জানালেন, আমি আর্ট কলেজে ভর্তি হওয়ার জন্য বায়না ধরেছি তখন তিনি বললেন, ছেলে যেখানে ভর্তি হতে চায় সেখানেই ভর্তি করিয়ে দিন। আবার অনেকে বললেন, চারুকলায় গেলে আমি নষ্ট হয়ে যাবো। কিন্তু সব মিলিয়ে বাবা শেষ পর্যন্ত আমাকে আর্ট কলেজে ভর্তি করার জন্য ঢাকায় নিয়ে আসেন।

আর্ট কলেজে ভর্তির ভাইভা নিয়েছিলেন জয়নুল আবেদিন স্যার।’ উচ্ছ্বসিত হয়ে তিনি বললেন ওই ঘটনা ‘আমি ও বাবা দু’জনে মিলে সরাসরি ওনার বাসায় চলে গিয়েছিলাম। ঢাকায় আসার আগে বাবা বেশ খোঁজখবর করে জয়নুল আবেদিন স্যারের বাসার ঠিকানা নিয়ে আসেন। আমরা যখন তাঁর বাসায় গেলাম দেখা করতে তখন আমাকে তিনি বললেন, দেখি তুমি কী আঁকো? তখন তাঁকে আমার কিছু আঁকা ছবি দেখালাম। এরপর তিনি সেগুলো দেখে আমাকে বললেন, তুমি কাল আর্ট কলেজে গিয়ে আমার নাম বলবে। বলবে জয়নুল আবেদিন ভর্তি করিয়ে নিতে বলেছেন। তারা তোমাকে ভর্তি করিয়ে নেবে।’
শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনকে শিক্ষক হিসেবে পাওয়াটা কম কথা নয়। আর হামিদুজ্জামানকে তিনি ভীষণ ভালোবাসতেন। এর প্রমাণ তিনি তখন পেয়েছিলেন যখন দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন- ‘হঠাৎ একদিন আবেদিন স্যার আমাকে ডাকলেন। একটু ভয় পেয়ে গেলাম। ওনার সামনে যাওয়ার পর তিনি জিজ্ঞাসা করলেন, তোমার এক্সিবিশনে কতোটি ওয়াটার কালার আছে? মুখ কাচুমাচু করে বললাম, বেশ কিছু আছে স্যার। স্যার বললেন-ওগুলো দেবে, আমার ডিপার্টমেন্ট থেকে ফ্রেম করিয়ে দেবো। আমার কাছে যেগুলো ছিল সেগুলো স্যারের কাছে দিয়ে দিলাম। আমাদের প্রিন্ট মেকিংয়ের অনেক বড় বড় ফ্রেম ছিল। টিচাররা ইউজ করতেন মাঝে-মধ্যে। সেখানে গিয়ে দেখি, আমার ছবিগুলা সব ফ্রেম করা হয়ে গেছে। এরপর সেখানে আবেদিন স্যার এসে বললেন- এই শোনো, তোমার যে কয়টি ছবি আছে তা আমি কিনে নিলাম। এগুলো আমার। আমার যে বিভিন্ন গেস্ট আসে তাদের এগুলো প্রেজেন্ট করবো। তুমি অফিস থেকে পয়সা নিয়ে যেও। আমি দ্বিতীয় বর্ষে পড়ি আর আবেদিন স্যার আমার ছবি কিনেছেন! খুশিতে কেঁদে ফেলি। এটি আমার জীবনের অনেক বড় পাওয়া এবং অবশ্যই অনুপ্রেরণা তো বটেই।


ভাস্কর্যের সঙ্গে পরিচয় হলো কবে জিজ্ঞাসা করতেই হামিদুজ্জামান বললেন, ‘এ ভাবনাটা ফাইনাল পরীক্ষা দেয়ার পর যখন বিদেশে যাই তখন মাথায় আসে। ফাইনাল ইয়ারে পড়ার সময় আমার একটা মেজর অ্যাকসিডেন্ট হয়। এতে আমার মাথায় অনেক আঘাত লাগে। এরপর মোটামুটি সুস্থ হওয়ার পর ফাইনাল পরীক্ষা দিই এবং পাস করি। এরপর লন্ডনে চলে যাই চিকিৎসার জন্য। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ডাক্তাররা আমাকে চার মাস লন্ডনে থাকতে বললেন। তবে সব থেকে মজার ব্যাপার হলো, কিছু ছবি বিক্রি করে বেশকিছু টাকা হাতে করেই লন্ডনে গিয়েছিলাম। কিন্তু চিকিৎসা করাতে আমার তেমন কোনো টাকা লাগেনি। আমি স্টুডেন্ট বলে আমাকে চিকিৎসকরা ফ্রি চিকিৎসা করিয়ে দিলেন। আর এর মধ্যে লন্ডনে বেশ কিছুদিন থাকার সুবাদে ফ্রি টাইমে ঘোরাঘুরি করা শুরু করি। এরপর মাঝে বেশ কিছুদিন সময় নিয়ে প্যারিস ও রোমেও ঘুরতে যাই। এ সময় দেখে ফেলি ব্রিটিশ মিউজিয়াম, ভিকটোরিয়া অ্যালবার্ট মিউজিয়াম, পোট্রেইট গ্যালারি, ন্যাশনাল মিউজিয়াম, প্যারিসের ল্যুভর মিউজিয়ামসহ রোমের বিখ্যাত সব গ্যালারি। মূলত ওই সময়টাতেই ভাস্কর্য আমাকে একটু আলাদাভাবে টানতে শুরু করে। বিভিন্ন স্থানে প্রতিস্থাপিত বিভিন্ন ভাস্কর্য দেখে ভাবতাম, এই মেটালের ভাস্কর্যগুলো কতো লড়াই করে প্রকৃতির ভেতর টিকে রয়েছে এবং যুগ যুগ ধরে রয়েছে বিভিন্ন ঘটনার সাক্ষী। এগুলো অনেক ঐতিহ্য বহন করতে পারে। এসব চিন্তা থেকেই ভাস্কর্যের প্রতি আমার এক ধরনের আগ্রহ তৈরি হয়।’
হামিদুজ্জামান যদিও পেইন্টিং নিয়ে পড়াওশানা করেছেন তবুও শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন ও প্রফেসর রাজ্জাকের উৎসাহে ১৯৭০ সালে আর্ট কলেজে ভাস্কর্যের শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। শিক্ষক হওয়ার পর ভারতের বড়দা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্কলারশিপ নিয়ে পড়াশোনা করেন তিনি।
এরপর ১৯৭৬ সালে বড়দা মহারাজা সাহাজিরাও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএফএ করেন। পরে ১৯৮২-১৯৮৩ সালে স্কাল্পচার সেন্টারে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বহুকাল চারুকলার শিক্ষকতা শেষে অবসর নেন তিনি।
পড়াতে খুব ভালোবাসতেন বলেই অনারারি প্রফেসর হিসেবে এখনো মাঝে মধ্যেই ক্লাস নেন।


দেশে-বিদেশে বহু ভাস্কর্যের জনক হামিদুজ্জামানের উল্লেখযোগ্য কাজগুলোর মধ্যে বঙ্গভবনের ‘পাখি পরিবার’, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘সংশপ্তক’ এবং ১৯৮৮ সালে সিউল অলম্পিকের ‘স্টেপস’ কাজগুলো প্রচুর সুনাম এনে দিয়েছে তাকে। ওই কাজগুলো করতে গিয়ে ভাস্কর্য চর্চায় কোনো বিদেশি প্রভাব খুঁজে পেয়েছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিদেশি প্রভাব থাকবে কেন! আমাদের সংস্কৃতির চিরায়ত প্রভাব রয়েছে ওই কাজগুলোয়। এসব ভাস্কর্য বিদেশি ধাতুতে নির্মিত হলেও এতে আমাদের স্বকীয়তা রয়েছে। কারণ ভাস্কর্য চর্চা তো আমাদের কারো কাছ থেকে ধার করা নয়। ভাস্কর্য চর্চায় আমরা নতুন নই। আমাদের টেরাকোটা এ অঞ্চলের ভাস্কর্যের চিরায়ত প্রভাব বহন করে। ওই টেরাকোটা অনেক বছরের পুরনো। নিঃসন্দেহে বলতে পারি, আমাদের ভাস্কর্য চর্চার শিকড় আছে। আমরা চাইলেই আমাদের স্বকীয়তা নিয়ে কাজ করতে পারি। এ জন্য কারো দ্বারস্থ হওয়ার দরকার হয় না।’

হামিদুজ্জামান তাঁর শিল্পে সমৃদ্ধ করুন আমাদের সংস্কৃতি, তাঁর হাত ধরে আলাদা বৈশিষ্ট্য ধারণ করুক উমহাদেশের ভাস্কর্য শিল্প। হামিদুজ্জামানের দীর্ঘায়ু কামনা করছি।

 

_____________________________
সাক্ষাৎকার : শাকিল সারোয়ার
ছবি : শোভন আচার্য্য অম্বু

 

Page 1 of 3

About Us

Lorem ipsum dolor sit amet, consectetur adipisicing elit, sed do eiusmod tempor incididunt ut labore et dolore magna aliqua.

Duis aute irure dolor in reprehenderit in voluptate velit esse cillum dolore eu fugiat nulla pariatur.

Read More

We use cookies to improve our website. By continuing to use this website, you are giving consent to cookies being used. More details…